ঝালকাঠিতে স্বর্ণ কিশোরীকে নির্যাতন মামলায় অভিযোগ গঠন

আমির হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির স্বর্ন কিশোরী নাছরিন আক্তার সারার ওপর হামলা ও নির্যাতন ঘটনায় একমাত্র আসামী জুবায়ের আদনানের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে।

গতকাল সোমবার আদালতের বিচারক এম.এ হামিদ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১০ ধারায় অভিযোগ গঠন করে আগামী ২৮ নভেম্বর সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য তারিখ নির্ধারণ করেন। এর আগে আসামীকে অভিযোগ পড়ে শোনান পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল মান্নান রসুল।

মামলা সূত্রে জানা গেছে ঝালকাঠি সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়নের একটি মসজিদের ঈমাম জাকির হোসেনের ছেলে জুবায়ের আদনান বেশকিছুদিন ধরে নাছরিন আক্তার সারাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে আদনান তাঁর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে গত বছরের ২ অক্টোবর দুপুরে জুবায়ের আদনান ফকিরবাড়ি সড়কের সারার বড় বোন আখিনুরের ভাড়া করা বাসায় সারাকে যৌন হয়রানী করে তার ওপর হামলা চালায়। মারধরের এক পর্যায়ে সারা জ্ঞান হারিয়ে ফেললে, আদনান পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে বড়বোন ও প্রতিবেশীরা সারাকে উদ্ধার করে প্রথমে ঝালকাঠি সদর থানায় নিয়ে আসে। সেখান থেকে তাকে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ব্যাপারে ওই দিন রাতেই ঝালকাঠি থানায় সারা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার এক সপ্তাহ পার হয়ে গেলেও পুলিশ আসামিকে গ্রেফতার করতে না পারায় ক্ষুব্ধ সারা ঝালকাঠি থানার সামনে অনশনে বসে। পুলিশ ৭২ ঘন্টার মধ্যে আসামী গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে সে অনশন ভঙ্গ করে। পুলিশের অভিযানে বাধ্য হয়ে ২০২০ সালের ১৩ অক্টোবর ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পন করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক এ.এস.এম তারেক শামস জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে জুবায়েরকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

জুবায়ের বরগুনা সদর উপজেলার নিশানবাড়িয়া গ্রামের জাকির হোসেনের ছেলে। বর্তমানে তাঁর বাবা ঝালকাঠি সদর উপজেলার ছিলারিশ গ্রামে একটি মসজিদের ইমাম হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। জুবায়ের ঝালকাঠি শহরের একটি কলেজের স্কাউটস’র টিম লিডার। ঝালকাঠি ডিবি পুলিশেরে এস.আই এনামুল হোসেন একই বছরের ডিসেম্বর মাসে আদনান যুবায়েরকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

আরো পড়ুন :  রাজাপুরে বিএনপি'র দু'টি ইউনিয়ন কমিটির অনুমোদন