বিনোদন

জায়েদের সঙ্গে অপুকে হাতেনাতে ধরেছিলেন শাকিব খান?

‘অপু বিশ্বাসের ঘর ভেঙেছে আমার কারণে, এরকম অনেক ব্লেইম দেওয়া হয় আমাকে। আসলে এরকম কিছুই ছিলো না। শাকিব ভাই বিভিন্ন টেলিভিশনসহ অনেক জায়গায় বলেছে যে, অপু বিশ্বাসকে আমি জায়েদের সঙ্গে হাতেনাতে ধরেছি! আমি খুবই লজ্জিত হয়েছি যে অপু বিশ্বাস তার স্ত্রী; এটা কিভাবে বলতে পারে শাকিব ভাই, আমি বুঝি না। এটা খুবই বাজে একটা কথা।’

সম্প্রতি একটি ফেসবুক লাইভ অনুষ্ঠানে এসে কথাগুলো বলছিলেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

সেখানে তিনি আরো বলেন, আমি গুলশানে অপু বিশ্বাসের বাসার নিচে তার বোনসহ কথা বলতেছিলাম। আমি তখন একটা সিনেমার বিষয়ে কথা বলতেছিলাম। একটা হিরো একটা স্টার নায়িকার সাথে কাজ করতে চাইতেই পারে। আর তখন আমরা জানতামও না যে সে (শাকিব খান) তার স্ত্রী ছিলো। কারণ বিষয়টা তখনও গোপন ছিলো।

আমরা তখন কথা বলতেছিলাম এরমধ্যেই শাকিব ভাই এসে দেখি অপু বিশ্বাসকে মারতে শুরু করেছে। আমার সামনে অপুকে লাথি মারলো। তখন আমি শাকিব ভাইকে বললাম ভাই, এটা কী করলেন?

‘বাসার দারোয়ানরা দেখছিলো এসব। তখন আমি ভাইকে সাইডে নিয়ে গিয়ে বললাম ভাই, আপনি একজন স্টার মানুষ; আপনি এসব করলে, এখানে দারোয়ান আছে, মানুষজন দেখলে কী বলবে? তখন শাকিব ভাই বলল, না না আমি আর ওর সাথে নাই।’

‘এরপর এগুলো নিয়ে তিনি বিভিন্ন জায়গায় বলেছেন, আমি অপুকে জায়েদের সঙ্গে হাতেনাতে ধরেছি! এই কথাগুলো আমার খুব খারাপ লেগেছে। তিনি একজন সিনিয়র শিল্পী; তিনি কিভাবে এটা বলতে পারলেন?’

এদিকে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে তাকে বয়কট ঘোষণা করেছে চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠন। তাদেরকে প্রত্যাহারের দাবীতে এরইমধ্যে এফডিসির সামনে শিল্পীদের মানববন্ধনও হয়েছে।

হিন্দু দাবি করেও কোরবানি দিতে চান অপু, সাবেক স্বামী শাকিবের কাছে চাইলেন টাকাও

নিজেকে অমুসলিম দাবি করার পরও আসন্ন কোরবানির ঈদে কোরবানি দিতে চান নায়িকা অপু বিশ্বাস। আর এর জন্য তিনি তার সাবেক স্বামী অভিনেতা শাকিব খানের কাছে অর্থ চেয়ে পাঠিয়েছেন বলে জানিয়েছেন শাকিবের ঘনিষ্ট একটি সূত্র।

অপু কোরবানি দেবেন এমন খবর মিডিয়া পাড়ায় চাউর হওয়ায় অনেকের মন্তব্য ‘এই নায়িকা কিছুদিন আগেও বলেছেন, শাকিব তো আমাকে কাগজে কলমে মুসলিম করেননি। তাছাড়া শাকিব যখন আমাকে তালাক দিয়েই দিয়েছেন তখন আমার পরিবার ও সমাজের কারণে আমাকে হিন্দু ধর্মই পালন করতে হচ্ছে।

এ ছাড়াও নিজের জীবনটাকে তো আবার নতুন করে সাজাতে হবে। পরিবার থেকে আমার বিয়ের জন্য পাত্র দেখা হচ্ছে। তাই আমি হিন্দু ধর্মবলম্বী এবং আমার নাম অপু বিশ্বাস- এটিই এখন আমার একমাত্র পরিচয়।

অপুর এমন মন্তব্যের পর তিনি আবার কোরবানির ঈদ কীভাবে করতে চান?-এ প্রশ্ন এখন সবার। মিডিয়ার অনেকের মতে, গত কয়েক ঈদ এবং পূজায় দেখা গেছে ঈদ আসলে অপু এই উৎসব পালনের জন্য তোড়জোড় শুরু করেন, সাবেক স্বামী শাকিবের কাছে টাকা চেয়ে পাঠান।

আবার দূর্গা পূজা বা অন্য কোনো পূজা এলে পূজা অর্চনায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন। মানে ঈদের সময় অপু মুসলমান আর পূজায় হিন্দু। ধর্ম নিয়ে অপুর এমন দ্বৈত আচরণে হতবাক তার দর্শক ভক্তরাও।

২০১৭ সালের নভেম্বরে কাউকে না জানিয়ে পুত্র জয়কে বাসায় কাজের লোকের কাছে তালাবদ্ধ করে রেখে হঠাৎ কলকাতা চলে যান অপু। তখন জয়কে ঘরে তালাবদ্ধ করে রেখে অপুর এই গোপন যাত্রার খবর পেয়ে বিদেশে শুটিংয়ে থাকা শাকিব পুত্রের জন্য উদ্বিগ্ন হয়ে দেশে ছুটে আসেন। আর অপুর এমন আচরণে ক্ষিপ্ত শাকিব তখনই অপুকে ডিভোর্স দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

এ অবস্থায় অপু দ্রুত কলকাতা থেকে ফিরে এসে ওই বছরের ২০ নভেম্বর একটি পত্রিকার কাছে বলেছিলেন, ‘আমাদের পুত্র জয়ের উন্নত ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে শাকিবের সঙ্গে সংসার করতে চাই। আর অভিনয় নয়, নামাজ, রোজা, হজ নিয়মিত আদায় করে স্বামী সন্তান নিয়ে সুখে সংসার করবো।

কিন্তু মনক্ষুণ্ণ শাকিব অপুর এমন আবদার উড়িয়ে দিয়ে তালাকের পথে হাঁটেন। এদিকে, সম্প্রতি কোরবানির জন্য শাকিবের কাছে অপুর টাকা চাওয়ার বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে বিষয়টি স্বীকার করে শাকিব বলেন, এসব বিষয় নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না।

এগুলো একেবারেই ব্যক্তিগত ব্যাপার। আমি শুধু বলতে চাই, করোনার কারণে দীর্ঘদিন ঘরে থাকতে থাকতে আমি এখন খুব বিরক্ত বোধ করছি। তাই পুত্র জয়কে নিয়ে কোরবানির ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে চাই। আমার আশা, ঈদের সময় জয় আমার কাছেই থাকবে।