Bangladesh জাতীয়

কুমিল্লার দেবিদ্বারে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধার চিকিৎসার দায়িত্ব নিল হ্যালো ছাত্রলীগ

বয়স আশি ছুঁইছুঁই বৃদ্ধের নাম আলফু মিয়া। সবাই তাঁকে আলফু ফকির নামেই চেনেন। কে জানে ফকির নামের আড়ালেই কিনা চাপা পড়ে আছে তাঁর আরেকটি বড় পরিচয়? আর সেই পরিচয়টি হলো, তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা।

রোববার রাতে কুমিল্লার দেবিদ্বারে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আলফু ফকিরের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন হ্যালো ছাত্রলীগ। 

যুদ্ধাহত মুক্তিযাদ্ধা  আলফু ফকির ১৯৭১ সালের ৩১ মার্চ ১৪ জনের একটি পাক সেনাদল পায়ে হেঁটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ময়নামতি সেনা ক্যাম্পে যাওয়ার পথে দেবিদ্বারে মুক্তিকামী জনতার প্রতিরোধে অবরুদ্ধ হয়। পুরো দলটিকে পরাজিত করতে ৩৩ বাঙালি শহিদ এবং অসংখ্য লোক আহত হন। ওই যুদ্ধে আলফু ফকিরের হাতে একটি গুলিবিদ্ধ হয়।

দীর্ঘদিন ধরে নানা জটিল ও কঠিন রোগে ভুগছেন যুদ্ধাহত আলফু ফকির (৭২)। তার হাতে পায়ে পানি জমে গেছে। তিনি করোনা পজেটিভ থেকে সম্প্রতি সুস্থ হয়েছেন।

আলফু মিয়া আক্ষেপ করে বলেন, নয় মাসের যুদ্ধে দেশ স্বাধীন হলেও পরবর্তীতে অনেক অ-মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযোদ্ধার খেতাব, সম্মানীভাতা ভোগ করছে। অথচ অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাকেই সরকার যথাযথ মূল্যায়ন করেনি বা করতে পারেনি।

জাফরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের একটা সনদ ছাড়া তাঁর কাছে আর কোন দলিল নেই, তাঁর এ বীরত্বগাথা্ কাহিনী প্রমানের জন্য। এ জন্যেই এ সনদ তিনি বুকে আগলে রাখেন সব সময়, আর অপেক্ষা করে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে একটু স্বীকৃতি পাবার জন্য।

হ্যালো ছাত্রলীগের টিম প্রধান ও ছাত্রলীগ কুমিল্লা উত্তর জেলা সভাপতি আবু কাউছার অনিক জানান, ছাত্রলীগ মানবিক কাজ খুঁজে খুঁজে বের করে তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আলফু ফকিরের চিকিৎসার যাবতীয় খরচ বহন করবে হ্যালো ছাত্রলীগ।  

আরো পড়ুনঃনিজস্ব ব্র্যান্ডের গাড়ি উৎপাদন করবে বাংলাদেশ