মেসির বাবা
Football খেলাধুলা

আমার ছেলে এখানে থাকতে চায় না: বার্সা বৈঠকে মেসির বাবা

বুধবারই অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে বার্সেলোনা প্রেসিডেন্ট হোসে মারিয়া বার্তেম্যু এবং মেসির বাবা হোর্হে মেসির সঙ্গে সেই বহুল প্রতিক্ষিত বৈঠকটি। ধারণা করা হয়েছিল, এই বৈঠকেই নির্ধারিত হয়ে যাবে মেসির ভবিষ্যৎ।

কিন্তু না, কিছুই হলো না। কোনো সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হলো দুই ঘণ্টার বৈঠক। দুই পক্ষই নিজ নিজ বক্তব্য তুলে ধরেছে। কিন্তু কেউ ছাড় দিতে রাজি না হওয়ায় বৈঠক শেষ হয়েছে অমিমাংসিতভাবেই।

আরও পড়ুনঃ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন নেইমার

তবে সবার জানার আগ্রহ, মেসির হয়ে বার্সেলোনা সভাপতিসহ বোর্ডের সামনে কি বক্তব্য তুলে ধরেছেন তার বাবা? কি এমন যুক্তি তুলে ধরেছেন, যেটার ওপর ভিত্তি করে বার্সেলোনা ছেড়ে যাবেন মেসি?

আর্জেন্টিনার বিখ্যাত ক্রীড়া বিষয়ক পত্রিকা টিওয়াইসি স্পোর্টস তুলে ধরেছে, বার্সার কাছে বলা মেসির বাবার বক্তব্য। মেসির বাবা নাকি, দুই ঘণ্টার বৈঠকের পুরোটা সময়ই বলেছেন, ‘আমার ছেলে এখানে থাকতে চায় না।’

পত্রিকাটির রিপোর্ট বলছে, ‘দুই ঘণ্টার বৈঠকে মেসির বাবাকে বারবারই এই কয়েকটি শব্দ উচ্চারণ করতে দেখা গেছে। বার্সা কোনো যুক্তি তুলে ধরলেই মেসির বাবা বলে উঠতেন, আমার ছেলে এখানে থাকতে চায় না (মাই সান ওনট স্টে)।’

বুধবার সকালেই আর্জেন্টিনার রোজারিও থেকে বার্সেলোনায় এসে পৌঁছান মেসির বাবা। সঙ্গে ছিল মেসির ভাই রদ্রিগো মেসি। সেখানে নেমেই মিডিয়ার সঙ্গে আলাপকালে মেসির বাবা একটি কথাই বললেন, ‘বার্সেলোনায় মেসির পক্ষে থাকা কঠিন, কঠিন।’

বুধবার রাতে ন্যু ক্যাম্পের বৈঠকে বার্সা সভাপতিসহ অন্য কর্মকর্তারা মেসির বাবাকে অনুরোধ জানিয়েছেন, মেসিকে সিদ্ধান্ত পূণর্বিবেচনা করার জন্য। বার্সা সভাপতি সরাসরি মেসির বাবা এবং অন্য প্রতিনিধিদের জানিয়ে দিয়েছেন, ‘মেসিকে কখনোই আমরা বিক্রি করবো না। তাকে কেন্দ্র করেই বার্সেলোনা আগামী এক বছরের জন্য স্পোর্টিং প্রজেক্ট সাজিয়ে তুলছে। সুতরাং, কাল বিলম্ব না করে মেসি যেন বার্সার অনুশীলনে যোগ দেয়।’

কিন্তু মেসির পক্ষ থেকে তার প্রতিনিধিরা দাবি করেন, ব্যুরোফ্যাক্সের মাধ্যমে পাঠানো চিঠিতেই মেসি জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি বার্সেলোনা ছাড়তে চান এবং সেটা ফ্রি ট্রান্সফার ফিতে। কারণ, তার সঙ্গে এখন ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজের শর্তযুক্ত নেই।

বার্সা দাবি করে, চুক্তি অনুযায়ী মেসির রিলিজ ক্লজের দাবি ছেড়ে দেয়ার শেষ সময় ছিল ১০ জুন। কিন্তু সেই তারিখ এরই মধ্যে পার হয়ে গেছে এবং অটোমেটিক্যালি মেসির চুক্তি এক বছর বেড়ে গেছে। এখন ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত তাকে ন্যু ক্যাম্পেই থাকতে হবে। এছাড়া অন্য কোনো ক্লাবে যেতে হলে ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর পুরো রিলিজ ক্লজ পরিশোধ করতে হবে।

মেসির পক্ষ দাবি করে, ২০১৭ সালে বার্সার সঙ্গে সম্পাদিত চুক্তির শর্ত অনুসারে যে কোনো মৌসুম শেষেই মেসি ফ্রি’তে বার্সেলোনা ছাড়ার অধিকার পাবেন। সেখানে রিলিজ ক্লজ কার্যকরী হওয়ার কোনো শর্ত নেই। তাছাড়া ১০ জুনের যে ডেটলাইনের কথা বলা হচ্ছে, সেটা এবার কার্যকরী হবে না। কারণ করোনাভাইরাসের কারণে মৌসুম শেষ হতেই তো অনেক বিলম্ব হয়েছে। সুতরাং, ১০ জুনের ডেটলাইন এখানে অকার্যকর।

প্রায় দু’ঘণ্টা ধরে পাল্টাপাল্টি বক্তব্যের পরও কেউ কারও দাবি থেকে সরে না আসার ফলে অমিমাংসিতভাবেই শেষ হয়েছে বার্সা সভাপতির সঙ্গে মেসির বাবা বৈঠক।