লকডাউনের বাপের বাড়িতে আটকে পড়েছেন স্ত্রী, একাকীত্ব সহ্য করতে না পেরে স্বামীর আত্মহত্যা
Bangladesh Khulna

‘আম্মু-আব্বু; আমাকে মাফ করে দিয়ো’- এই চিরকুট লিখে আত্মহত্যা

আমার পরিচিত মানুষগুলোকে আমার মৃত্যুর খবরটা জানিয়ে দিয়ো- এই চিরকুট লিখে আত্মহত্যা করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান ডিসিপ্লিনের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী আব্দুর রহিম (২৫)। প্রেমঘটিত সম্পর্কের অবনতির কারণে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মানিকগঞ্জ সদর থানার ওসি আকবর আলী খান জানান, বুধবার বিকেলে মানিকগঞ্জ জেলা শহরের দক্ষিণ সেওতা এলাকায় নিজ বাড়ির একটি কক্ষে সিলিং ফ্যানের হুকের সঙ্গে নাইলনের রশির মাধ্যমে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেন আব্দুর রহিম। করোনার কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় তিনি মানিকগঞ্জে এসে পরিবারের সঙ্গেই বসবাস করছিলেন। 

আরও পড়ুনঃ অপারেশন থিয়েটারে ইউএনও ওয়াহিদা খানম

আত্মহত্যার আগে তিনি একটি চিরকুট লিখে গেছেন। সেই লেখাটি আব্দুর রহিমের নিজ হাতের লেখা বলে নিশ্চিত করেছেন তাঁর সহপাঠী এবং পরিবারের সদস্যরা। চিরকুটে লেখা রয়েছে, ‘আম্মু-আব্বু, আমি সত্যি পারলাম না তোমাদের স্বপ্ন সত্যি করতে। আমাকে মাফ করে দিয়ো। এই দুনিয়াটা আমার আর ভালো লাগছে না, তাই চলে যাচ্ছি। আমার পরিচিত মানুষগুলোকে আমার মৃত্যুর খবরটা জানিয়ে দিয়ো। সবাইকে বলো, আমাকে যেন মাফ করে দেয়। আমি সত্যি এই দুনিয়ার যোগ্য না। লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (সা.)’।

একটি বিশ্বস্ত সূত্রের দাবি, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা স্কুলের ১৬ ব্যাচের এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক ছিল। বেশ কিছুদিন ধরে ওই সম্পর্কের অবনতি ঘটেছিল। 

তাঁর সহপাঠীরা জানান, সদা হাস্যোজ্জ্বল, প্রাণবন্ত এবং ক্রীড়াপ্রেমী শিক্ষার্থী ছিলেন আবদুর রহিম। তাঁর মাস্টার্স কোর্সের শুধু ডিফেন্স বাকি ছিল। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান মেধাবী ছাত্রের এই অকালমৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।