Bangladesh

ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার এসআই শামীম

নারায়ণগঞ্জের বরখাস্তকৃত পুলিশের উপ-পরিদর্শক শামীমের নির্যাতনের শিকার হয়ে ধর্ষণ ও হত্যার দায় স্বীকার; অতঃপর আদালতে সঠিক তথ্য উঠে আসার পর জামিনে মুক্ত নারায়ণগঞ্জের সেই মাঝি খলিলুর রহমান লোমহর্ষক সব তথ্য জানিয়েছেন। বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) কারামুক্ত হওয়ার পর সময় সংবাদের কাছে এসআই শামীমের অত্যাচার নিয়ে নানা তথ্য জানান তিনি।

খলিলুর বলেন, ৮ আগস্ট বিকেলে কোনো কারণ ছাড়াই নৌকা থেকে তাকে তুলে নিয়ে থানা হাজতে আটক করে সদর থানার এসআই শামীমের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল। পরে দাঁড় করানো হয় অপরিচিত দুই যুবকের সামনে। পরে শামীম তাকে প্রশ্ন করেন; ‘তুই ওদের চিনিস?’  উত্তরে ‘না’ বলতেই তাকে মারধরসহ নানা নির্যাতন শুরু করেন। এক পর্যায়ে হাত-পা বেঁধে উল্টো করে ঝুলিয়ে রাখেন।

তিনি বলেন, চোখে মুখে গামছা বেঁধে পানি ঢালা হয়। এতে তার দম বন্ধ হয়ে মারা যাওয়ার উপক্রম হয়। ১৫ থেকে ২০ মিনিট এভাবে চোখে মুখে পানি ঢেলে দফায় দফায় চলে অমানুষিক নির্যাতন। এসআই শামীমের কথামতো কাজ না করলে এবং মিথ্যা স্বীকারোক্তি না দিলে ক্রসফায়ারে হত্যার ভয় দেখানো হয়। শেষে প্রাণ বাঁচাতে বাধ্য হয়ে মিথ্যা জবানবন্দি দিতে সম্মত হলে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামানো হয়।

তিনি আরও বলেন, টানা তিনদিন থানা হাজতে আটকে রেখে এভাবে নির্যাতন করে শেখানো স্বীকারোক্তি দিতে বাধ্য করা হয়েছে। বর্তমানে থানায় পুলিশের নির্যাতনের কারণে শারীরিক ও মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তিনি।

ইউএনও ওয়াহিদার ওপর হামলার ঘটনায় তদন্ত কমিটি


খলিলুর বলেন, মিডিয়ার কারণে আল্লাহর রহমতে আমি জামিনে বেরিয়েছি। আমি এই মিথ্যা মামলা থেকে মুক্তি চাই। আমি অসুস্থ মানুষ। স্ত্রী সন্তান নিয়ে সুস্থভাবে জীবন যাপন করতে চাই। সরকার যেন আমাকে এই ঝামেলা থেকে মুক্তি দেন। তবে মিডিয়ায় কথা না বলতে পুলিশের পক্ষ থেকে নানাভাবে চাপ দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। 

স্ত্রী-সন্তান নিয়ে খলিল বন্দর উপজেলার একরামপুর এলাকায় ধনু মিয়ার বাড়িতে ভাড়া বাসায় থাকেন। শীতলক্ষ্যা নদীর নারায়ণগঞ্জ শহরের ৫নং ঘাটের পেশাদার নৌকার মাঝি তিনি। 

গত ৪ জুলাই এক কিশোরী নারায়ণগঞ্জ শহরের বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হলে সদর থানায় মামলা করে তার পরিবার। পরে পুলিশ সেই মামলায় খলিল, আব্দুল্লাহ্ ও রকিব নামে তিনজনকে গ্রেফতার করে। পরে ৯ আগস্ট তারা ওই কিশোরীকে গণধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে শীতলক্ষ্যা নদীতে লাশ ভাসিয়ে দেন বলে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন এসআই শামীম আল মামুন।

এদিকে ঘটনার ৫১ দিন পর ২৩ অগাস্ট ওই কিশোরী পরিবারের কাছে জীবিত ফিরে আসলে ব্যাপক তোলপাড় হয়। আদালতের নির্দেশে তিনি এখন তার পরিবারের সঙ্গে রয়েছেন। ফিরে আসার পর কিশোরী আদালতে স্বীকারোক্তিতে বলেছে, ইকবাল নামের এক যুবককে বিয়ে করে বন্দর এলাকার এক ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছিলেন তিনি।

আলোচিত এ ঘটনায় নির্যাতন করে জবানবন্দি আদায় ও আসামিদের পরিবারের কাছ থেকে ঘুষ নেয়াসহ নানা অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শামীমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা দায়েরের জন্য সুপারিশ করেছে পুলিশের তদন্ত কমিটি।