Bangladesh Politics

বিএনপির রাজনীতিকে নতুন করে সাজাতে হবে : টুকু

বিশ্ব রাজনীতির প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে বিএনপির রাজনীতিকে নতুন করে সাজাতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। তিনি বলেছেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া কন্ডিশনাল গৃহবন্দি। তিনি যেদিন জনগণের সামনে বক্তব্য রাখবেন, সেদিনই তিনি মুক্ত হবেন। তারেক রহমান যেদিন দেশে ফিরে জনগণের মধ্যে কথা বলবেন, সেদিন তিনি মুক্ত হবেন। ফলে, আজকে বিএনপিকে তাদের মুক্তির পথে কী কী বাধা আছে, কী ব্যারিকেড আছে, সেগুলো চিন্তা করে বিএনপিকে রাজনীতি সাজাতে হবে। বিশ্ব রাজনীতি এখন চেঞ্জ হয়ে গেছে। এগুলো এড্রেস করে আমাদের আগাতে হবে।’

বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে এক আলোচনা সভায় ইকবাল হাসান মাহমুদ এসব কথা বলেন। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ১৩তম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল এ সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ছাত্র ফোরাম ও উত্তরাঞ্চল ছাত্র ফোরাম।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘২০১৮ সালের নির্বাচনে আমরা গেলাম, গণতন্ত্ররক্ষা করতে নির্বাচনে গেলাম। যেই ফোর্সগুলো আমাদের সময়ে ইমার্জেন্সি এনেছিলো, সেই ফোর্সগুলোই তো..। এখন এসব জায়েজ, আমাদের সময়ে জায়েজ ছিল না।’

‘কারণটা হচ্ছে, আমাদের দল ন্যাশনালিস্ট পার্টি, জিয়াউর রহমান জাতীয় স্বার্থরক্ষায় একটি দল তৈরি করেছিলেন, বেগম জিয়া এর নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং তারেক রহমান ২০০১ সালে দেখিয়ে দিয়েছেন তিনি একজন গেম চেঞ্জার।’ উল্লেখ করে ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, এ কারণেই বিএনপির নেতৃত্ব উপর নির্যাতন চলছে। এই নির্যাতনের অংশ হিসেবে বিএনপিকে ধ্বং করার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

২০০৬ সালে নির্বাচনের প্রসঙ্গ বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘এই বাংলাদেশেও , আমাদের সময়ে আমরা এনক্লুসিভ নির্বাচন করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু অপজিশন করতে দেয়নি। কত কিছু হলো, জাতিসংঘের চিঠি এলো, এরপর একটা বিশেষ সরকার আসলো, তারা তাদের মতো থাকলো, এরপর তারা তাদের তপ্লিবাহক লোককে ক্ষমতায় বসিয়ে দিয়ে গেলো।’

সরকার রাষ্ট্রপরিচালনায় ব্যর্থ, হিংস্রতার শিকার হচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তারা : ফখরুল

তিনি অভিযোগ করেন, ‘আওয়ামী লীগ ২০১৪ সালে একতরফা নির্বাচন করলো, কোনও ইমার্জেন্সিও হলো না, কিছুই হলো না। যে র‌্যাব, পুলিশ আমাদের হত্যা করছে গুম করছে, তাদের বিরুদ্ধে তো ইউএন কিছু বলে না। ঠিক যেমন সিরিয়াতে হচ্ছে।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘খালেদা জিয়া-ভীতি ও তারেক রহমান-ভীতি কুঁড়েকুঁড়ে খায় সরকারকে।’

ব্যারিস্টার মীর হেলালের সভাপতিত্ব এবং ওবায়দুর রহমান চন্দের সঞ্চালনায় ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ১৩তম কারা মুক্তি দিবস উপলক্ষে বক্তব্য রাাখেন সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী অ্যাডভোকেট শামসর রহমান শিমুল বিশ্বাস, যুগ্ম-মহাসচিব হাবিবুর নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েল প্রমূখ।