Bangladesh Rangpur

সিটিস্ক্যান রিপোর্ট খুব ভালো, তবে শঙ্কামুক্ত নন ওয়াহিদা :ডা. জাহিদ হাসান

দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের জ্ঞান ফিরেছে। তার অবস্থা একন স্থিতিশীল রয়েছে। তবে তিনি এখনও শঙ্কামুক্ত নন।

শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) ন্যাশনাল ইন্সটিউট অব নিউরোসাইন্স বিভাগের নিউরোট্রমা বিভাগের প্রধান ডা. জাহিদ হাসান জানান, ওয়াহিদা খানমের সিটি স্ক্যান ফলাফল খুব ভালো, এক্সিলেন্ট, অপারেশন সাকসেসফুল, তবে এখনও শঙ্কামুক্ত নন তিনি।

এরআগে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে মাথায় অস্ত্রোপচারের পর থেকে ঢাকার নিউরো সায়েন্সেস ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হাসপাতালে ৭২ ঘন্টার পর্যবেক্ষণে রয়েছেন এ কর্মকর্তা। জ্ঞান ফেরার পর তিনি কথা বলেন তার স্বামীর সঙ্গে।

এদিকে ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার মুক্তিযোদ্ধা বাবার ওপর হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে প্রধান আসামি আসাদুল ইসলাম (৩৫) ও জাহাঙ্গীর হোসেনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-পুলিশের যৌথ দল।

গ্রেফতার জাহাঙ্গীর ঘোড়াঘাট উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক। আর আসাদুল ঘোড়াঘাট উপজেলা যুবলীগের সদস্য। মাসুদ রানা (৩৪) নামেও একজনকে আটকের তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া ইউএনও ওয়াহিদা খানমের বাসায় নৈশপ্রহরী নাহিদ হোসেন পলাশকেও আটক করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে দুর্বৃত্তরা মই বেয়ে ইউএনও ওয়াহিদার সরকারি বাসায় ঢুকে এবং ভেন্টিলেটর ভেঙে ইউএনওর রুমে প্রবেশ করে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত শুরু করে। এ সময় ইউএনও’র চিৎকার শুনে তার মুক্তিযোদ্ধা বাবা পাশের রুম থেকে ছুটে এসে মেয়েকে বাঁচানোর চেষ্টা করলে দুর্বৃত্তরা তাকেও কুপিয়ে জখম করে। পরে পাশের কোয়ার্টারের বাসিন্দারা বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।

গুরুতর আহত অবস্থায় ওই রাতেই প্রথমে ঘোড়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরদিন সকালে রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে বৃহস্পতিবার বাবা-মেয়েকে ঢাকায় আনা হয়। ভর্তি করা হয় রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সে হাসপাতালে।