জাতীয়

নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণ নাকি নাশকতা তদন্ত করা হবে

নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে নাকি নাশকতা হয়েছে তা তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) ময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত ‘বঙ্গবন্ধু : বাঙালির চেতনার বাতিঘর’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে আলোচনা সভায় যুক্ত হন।

মন্ত্রী বলেন, মসজিদে এসি বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দগ্ধদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা দেয়ার নির্দেশ ও সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

হতাহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করে তাদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

আরো পড়ুন: নারায়ণগঞ্জের ধ্বংসযজ্ঞের মাঝেও অক্ষত পবিত্র কোরআন

এদিকে জীবিকা নয়, জীবনের জন্যই শিক্ষা প্রয়োজন, এই বাস্তবতা শিক্ষার্থীদেরকে উপলব্ধি করার আহ্বান জানান তিনি।

বিভেদের দেয়াল ভেঙে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যের সেতুবন্ধনই দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে সোনালী অর্জনের নবদিগন্তে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি তাদের দৃষ্টিশক্তিতে নেতিবাচক রাজনীতির ঘন কুয়াশা জমেছে বলেই সরকারের সাহসী ও ভাল উদ্যোগ দেখতে পান না। তারা পূর্ণিমা রাতে অমাবস্যার আঁধার দেখেন, গভীর হতাশায় মাঝে মধ্যে হাঁক ছাড়েন।

সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে পরিবেশ অনুকূলে এলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান। তিনি এ সময় সচেতনতা ও সতর্কতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, কোনো ধরনের শৈথিল্য মোটেও কাম্য নয়।

তিনি বলেন, ইউরোপ, আমেরিকাসহ যে সব দেশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিয়েছিল, আবারও তারা বাধ্য হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে। করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে।

ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন সংসদ সদস্য মাওলানা রুহুল আমীন মাদানি, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর হারুন অর রশিদসহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ।