Education

নোবিপ্রবিতে শিক্ষক নিয়োগ জটিলতা, শিক্ষকদের আল্টিমেটাম

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (নোবিপ্রবি) ২০১৯ সালের এপ্রিল মাস থেকে সব ধরনের নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত রেখেছে শিক্ষামন্ত্রণালয়। ফলে প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ রয়েছে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ।

শিক্ষক সংকটের কারণে দু’চারজন শিক্ষক দিয়েও চালিয়ে নিতে হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশকিছু বিভাগের অ্যাকাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম। এতে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষাকার্যক্রম। শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বাভাবিক করতে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত উপাচার্যকে সময় বেঁধে দিয়েছে শিক্ষক নেতারা। এরমধ্যে শিক্ষক নিয়োগের অচলাবস্থার সমাধান করতে না পারলে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের কথা জানিয়েছে শিক্ষক নেতারা।

আরও পড়ুনঃ “রোববার দায়িত্ব নিবে বশেমুরবিপ্রবির নতুন ভিসি”

শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

আরও জানা যায়, শিক্ষক নিয়োগের অচলাবস্থা সমাধানে গত ৩১ আগস্ট নোবিপ্রবি উপাচার্যকে চিঠি দেয় নোবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি। চিঠিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০ জন শিক্ষক শিক্ষাছুটির বিপরীতে অস্থায়ী ও চুক্তিভিত্তিক পদে নিয়োগপ্রাপ্ত রয়েছেন। শিক্ষামন্ত্রণালয় থেকে প্রদত্ত নিষেধাজ্ঞার কারণে তাদের স্থায়ীকরণ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এরই মধ্যে অনেক শিক্ষকের পরবর্তী পদে পদোন্নতির সময়ও প্রায় এক বছর পার হয়েছে। তাদের পর স্থায়ী পদে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকরাও পদোন্নতি পেয়েছেন। ফলে শিক্ষকদের মাঝে এক ধরনের বৈষম্যের সৃষ্টি হয়েছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেকগুলো বিভাগেই পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই। মাত্র দু’জন শিক্ষক দিয়ে দুই শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে। ফলে শিক্ষার মান খারাপ হচ্ছে, শিক্ষার্থীরা অবহেলিত হচ্ছে। পাশাপাশি শিক্ষক নিয়োগ বন্ধ থাকায় ও বিভাগ পরিচালনায় পর্যাপ্ত শিক্ষক না থাকায় অনেক বিভাগের শিক্ষকরা শিক্ষাছুটিতে যেতে পারছেন না। তাই ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এ বিষয়টি সুরাহা না করতে পারলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনসহ বড় ধরনের কর্মসূচিতে যেতে আমরা বাধ্য হব।

এ প্রসঙ্গে নোবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন, ‘নতুন শিক্ষক নিয়োগ বন্ধ; উল্টো অনেক শিক্ষক শিক্ষাছুটি ও মাতৃত্বকালীন ছুটিতে গেছেন। ফলে শিক্ষক সংকট ক্রমেই বাড়ছে। অন্যদিকে নতুন বিভাগগুলোতে শিক্ষার্থী সংখ্যা বাড়ছে। স্থগিতাদেশের কারণে অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া প্রায় ৬০ জন শিক্ষকের স্থায়ী নিয়োগ না হওয়ায় তাদের মধ্যে এক ধরনের হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। আমরা এ সমস্যার দ্রুত সমাধান চাই। অন্যথায় আমাদের অবস্থান কী হবে-সেটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।’