ধর্ম

সব অবস্থায় কি আল্লাহর জিকির করা যাবে?

এমন অনেক মানুষ আছেন, যারা হাঁটা-হাঁটি কিংবা যার যার কাজে থাকা অবস্থায় মহান আল্লাহর জিকির-আজকার করে থাকেন। আবার অনেকে মনে করেন নামাজের সময় ছাড়া জিকির-আজকার করা যায় না। প্রশ্ন হলো- সবসময় সর্বাবস্থায় কি আল্লাহর জিকির করা যায়?

মুমিন মুসলমানের মধ্যে অনেকেই সবসময় সর্বাবস্থায় তাকবির, তাহলিল, তাহমিদ, তাউজ, তাসমিয়া কিংবা অন্য যে কোনো দোয়া, দরূদ বা জিকির-আজকার করে থাকে। এভাবে আল্লাহর গুণবাচক নামের জিকিরসহ অন্য তাসবিহ পড়ায় ইসলামের নির্দেশনাই বা কি? আবার এসব জিকির-আজকারের জন্য ওজুর প্রয়োজন আছে কি?

জিকির-আজকার করা এমন এক প্রশংসনীয় ইবাদত, যা সবসময় সর্বাবস্থায় ওজু ছাড়াই করা যায়। সবসময় সর্বাবস্থায় জিকির-আজকার ওজু ছাড়া জিকির-আজকার করায় কোনো দোষ বা সমস্যা নেই বরং এটি অত্যন্ত প্রশংসনীয় ভাল কাজ ও ইবাদত। আল্লাহ তাআলা মুমিন বান্দাকে বেশি বেশি জিকির করার নির্দেশ দিয়েছেন। 

আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন-
‘হে মুমিনগণ! তোমরা অধিক পরিমাণে আল্লাহর জিকির কর।’ (সুরা আহজাব : আয়াত ৪১)

সবসময় সর্বাবস্থায় জিকির করা সম্পর্কেও কুরআনুল কারিমের নির্দেশনা রয়েছে। যার ইচ্ছা সে বসে, শুয়ে, কাত হয়ে কিংবা নামাজ ও নামাজের বাইরে জিকির করতে পারেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘অতপর যখন তোমরা নামাজ শেষ কর, তখন দাঁড়িয়ে, বসে ও শোয়া অবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ কর। অতপর যখন বিপদমুক্ত হয়ে যাও, তখন নামাজ ঠিক করে পড়। নিশ্চয় নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নামাজ মুসলমানদের উপর ফরজ।’ (সুরা নিসা : আয়াত ১০৩)

সুরা আল-ইমরানে মহান আল্লাহ তাআলা সর্বাবস্থায় জিকির করার বিষয়ে সুস্পষ্ট ঘোষণা দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘নিশ্চয়ই আসমান ও জমিন সৃষ্টিতে এবং রাত ও দিনের আবর্তনে জ্ঞান সম্পন্ন লোকদের জন্য নিদর্শন রয়েছে। যারা দাঁড়িয়ে, বসে এবং শোয়া অবস্থায় আল্লাহকে স্মরণ করে। আর আসমান ও জমিন সৃষ্টির বিষয়ে চিন্তা গবেষণা করে। (তারা বলে)- পরওয়ারদেগার! এসব তুমি অনর্থক সৃষ্টি করনি। সব পবিত্রতা তোমারই, আমাদের তুমি দোযখের শাস্তি থেকে বাঁচাও।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৯০-১৯১)

কুরআনুল কারিমের এসব আয়াত থেকে এ বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, যারা হাঁটা-হাঁটি করা অবস্থায় জিকির করে, অসুস্থ হয়ে যারা বিছানায় শোয়া অবস্থায় জিকির করে কিংবা নামাজে দাঁড়িয়ে মহান আল্লাহর জিকির করে, সবার জন্যই আল্লাহর জিকির বৈধ ও সাওয়াবের কাজ।

এমনকি কেউ যদি অপবিত্র হয় তার জন্য নামাজ, কুরআন স্পর্শ ইত্যাদি নিষিদ্ধ হলেও জিকির করায় কোনো সমস্যা বা দোষ নেই। সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, সবসময় ও সর্বাবস্থায় মহান আল্লাহর জিকিরে নিজেকে নিয়োজিত রাখা। তবে অপবিত্র অবস্থায় জিকির করা থেকে পবিত্র অবস্থায় জিকির করা উত্তম।

মনে রাখতে হবে
সব স্থানে জিকির করা যাবে না। তা হতে পারে তথা টয়লেট বা নাপাক স্থান। টয়লেট জাতীয় যে কোনো নাপাক স্থানে জিকির করা বৈধ নয়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সবসময় সর্বাবস্থায় পবিত্রতার সঙ্গে বেশি বেশি মহান আল্লাহর জিকির করার তাওফিক দান করুন। আমিন।