Bangladesh Khulna

মোবাইলে জুয়ার আসর, গেম পাগল পোলা, উদ্বিগ্ন পিতা-মাতা

সোহরাব হোসেন সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি- সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ধুলিহার ব্রহ্মরাজপুর, ঘোনা, ভোমরা, কাথন্ডা, কুশখালী, কদমতলা সহ সর্বত্র এলাকায় চায়ের দোকান সহ মাঠ প্রাঙ্গণ কোচিং সেন্টারে ও চলছে মোবাইলে লুডু গেম এ জুয়ার আসর।

সরেজমিনে দেখা গেছে যে চায়ের দোকানগুলো চলছে এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে দুই থেকে তিন চার জন মিলে একত্রে বসে মোবাইলে লুডু গেম এর জুয়ার আসর। এছাড়া কোচিং সেন্টারগুলোতে ও চলছে লুডু গেম সহ বিভিন্ন ধরনের ফাইটিং গেম। এসব গেম এন্ড্রয়েড ফোন থাকলে সবাই খেলতে পারে। করণা ভাইরাসের কারণে মানুষ যখন নিস্তব্ধ জনসমাগম থেকে বিরত এমনই সময় বিভিন্ন ধরনের গাছ তলা, মাঠের ফাঁকা জায়গা, বাড়ির ছাদের উপর, কোচিং সেন্টারে বসে এই গেমগুলো খেলছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন গেম খেলোয়ার জানালো। এই গেমে প্রথম বিজয়ী ৫০ টাকা। দ্বিতীয় বিজয়ী ৩০ টাকা পাবে। প্রথম বিজয়ী কে ৫০ টাকা দিবে যে চতুর্থ হবে। দ্বিতীয় বিজয়ীকে ৩০ টাকা দিবে যিনি তৃতীয় হবে। এমন ধরনের বিভিন্ন সিস্টেমে খেলা গুলো চলছে সর্বত্র। এই খেলা গুলো করছেন বিভিন্ন বয়সের মানুষ ১৫ থেকে শুরু করে ৫৫ বছর বয়সি বিভিন্ন পেশার মানুষ।

জুয়ার টাকা জোগাড় করতে এসব জুয়াড়িরা বেছে নিচ্ছে চুরি-ডাকাতি-ছিনতাই সহ নানা ধরনের অপকর্ম। ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় আসছেন অভিভাবক মহল। একজন ছাত্রের বাবা জানান তিনি তার সন্তানকে এই জুয়া খেলা থেকে ফেরাতে সন্তানের ব্যবহৃত এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনটি নিয়ে নিয়েছে। তারপরও ওই সন্তানকে কোচিংয়ে অন্য ছেলেদের মোবাইলে লুডু খেলতে দেখেছেন এবং সেটাও টাকার বিনিময়। এজন্য অভিভাবকরা তাদের সন্তানকে নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। এমত অবস্থায় সচেতন মহল এই জুয়া খেলাকে বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।