১৫ দিনের মধ্যেই কমতে যাচ্ছে পেঁয়াজের দাম
জাতীয়

রাতারাতি পেঁয়াজের কেজি একশো!

রাতারাতি একশো’তে উঠলো পেঁয়াজের ঝাঁজ। পড়ে গেছে কেনার হিড়িক। ভারত গতকাল রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই হু হু করে বাড়তে থাকে দাম। সরবরাহ থাকলেও রাজধানীর শ্যামবাজার আড়তে কয়েক ঘণ্টা বিক্রি বন্ধ রাখা হয়।

গেল বছর পেঁয়াজের দর ঠেকেছিলো ৩০০ টাকা কেজি। সেই আতঙ্কে এবার ভারতের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের খবর শোনার পরপরই বাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন ক্রেতা। চাহিদার অতিরিক্ত পেঁয়াজ কিনছেন বেশিরভাগ ক্রেতা। তাই দামও বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে।

আরও পড়ুনঃ ইসির দুই অপারেটরসহ ভুয়া এনআইডি তৈরি চক্র ডিবির জালে

পুরান ঢাকার শ্যামবাজারের পাইকারি আড়ত আরো এক কাঠি সরেস। সরবরাহ সত্ত্বেও কয়েক ঘণ্টার জন্য বিক্রি করেনি আড়তদাররা। পাইকারি ক্রেতাদের অভিযোগ, কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির করার অপচেষ্টা করছে আড়তদাররা।

এদিকে, বাজার অস্থির হওয়ার খবরে অতিরিক্ত দামে পেঁয়াজ বিক্রি ঠেকাতে অভিযানে নেমেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

আরও পড়ুন: খিচুড়ি রান্না শিখতে নয়, মিড ডে মিল বাস্তবায়নে বিদেশে প্রশিক্ষণ

কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, চলতিবছর উৎপাদন হয়েছে প্রায় ২৪ লাখ মেট্রিক টন পেঁয়াজ। এরমধ্যে সংরক্ষণ দুর্বলতায় পচে যায় ৩০ শতাংশ যা প্রায় সাড়ে সাত লাখ মেট্রিক টন। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, ইতোমধ্যে ভারত থেকে ৮ লাখ মেট্রিক টনের বেশি পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। এসব পরিসংখ্যান বলছে দেশে পেঁয়াজের কোন ঘাটতি নেই।