Cricket খেলাধুলা

বিসিবির সঙ্গে এমন কোনো কথাই হয়নি : লঙ্কান বোর্ড

এত আলোচনা, এত পরিকল্পনা—সবই ভেস্তে যাওয়ার জোগাড়! শ্রীলঙ্কা সফর লক্ষ্য রেখে প্রস্তুতি কিংবা দ্বীপ দেশটিতে গিয়ে অনুশীলন কেমন হবে, সেসবও গুছিয়ে রেখেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কিন্তু শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি) থেকে পাঠানো কঠিন শর্ত দেখে রীতিমতো অবাক তারা। কোয়ারেন্টিন পর্ব সারতে হবে পুরো ১৪ দিন মেনে। যদিও বিসিবির দাবি, তারা রাজি ছিল এক সপ্তাহের কোয়ারেন্টিনে। এই যখন অবস্থা, তখন মুখ খুলেছে এসএলসি। সংস্থাটির প্রধান শাম্মি সিলভা উড়িয়ে দিয়েছেন বিসিবির দাবি।

কোয়ারেন্টিন নিয়ে বড় একটা ধোঁয়াশা ছিল। ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান বেশ কয়েকবার জানিয়েছেন, লঙ্কান বোর্ড এখনও তাদের কোয়ারেন্টিনের সময় সম্পর্কে জানায়নি। তবে আলোচনা যে সাত দিনের কোয়ারেন্টিন নিয়ে হচ্ছিলো, সেটি যুক্ত করেছিলেন। কিন্তু রবিবার রাতে পাঠানো বার্তায় এসএলসি পুরো ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিন শর্ত বেঁধে দেয়। যেটি মেনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে ম্যাচ খেলা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান।

নাজমুল এও জানিয়েছেন, শ্রীলঙ্কার সঙ্গে সাত দিনের কোয়ারেন্টিন নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাদের। যদিও তার এই দাবি নাকচ করে দিয়েছেন এসএলসি সভাপতি সিলভা। লঙ্কান সংবাদমাধ্যম সিলন টুডেকে তিনি বলেছেন, ‘যদি তারা এটা (সাত দিনের কোয়ারেন্টিন) উল্লেখ করে থাকে, তাহলে এটা ভুল। আমি সত্যি বুঝতে পারছি ‍না কেন তারা ‍এক সপ্তাহ উল্লেখ করছে। ‍আমরা কোনও অবস্থাতেই বিসিবির বলা সাত দিনের কোয়ারেন্টিন নিয়ে কথা বলিনি।’

কোয়ারেন্টিন নিয়ে শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনাও সামনে এনেছেন এসএলসি প্রধান, ‘স্বাস্থ্য অধিদফতরের বেঁধে দেওয়া কোয়ারেন্টিন সময়সীমার বাইরে আমরা যেতে পারি না। এটা একদম নিশ্চিত, বাংলাদেশ দলকে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন পিরিয়ডে যেতেই হবে।’

কোয়ারেন্টিনের আরও কিছু শর্তের উল্লেখ করেছেন সিলভা, ‘এমনকি শ্রীলঙ্কায় আসার আগে তাদের বাংলাদেশে কোয়ারেন্টিন পর্ব সারতে হবে। এরপর যখন কলম্বোয় পৌঁছাবে, ওই রাত থেকে হোটেলে তাদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন পর্বে যেতে হবে।’

লঙ্কান বোর্ডের সভাপতি ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের বাধ্যতার কথা শোনালেও দ্বীপ দেশটির মিডিয়ার খবর, কোয়ারেন্টিনের সময়কাল কমানো যায় কিনা, এ ব্যাপারে আজই (মঙ্গলবার) আলোচনায় বসেছে এসএলসি। এছাড়া সফরে ‍বাংলাদেশ দলের সদস্য সংখ্যা বাড়ানোর আলোচনাও হতে পারে। এই করোনাকালে ‍লঙ্কান বোর্ড কেবল ৩০ জনকে সফরে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে।