Bangladesh Sylhet

দুই দেশের কাঁটাতারের সীমানা আটকে দিল ভারতীয় তরুণীর ভালোবাসা

হাবিব আজাদ , সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : ভালোবাসার টানে কাঁটাতারের বাঁধা পেরিয়ে সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউপির উত্তর কলাউড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তার বাড়িতে এসেছেন এক ভারতীয় তরুণী মঞ্জুরা।

কিন্তু কাঁটাতারের সীমানা বাধা হয়ে দাঁড়াল তাদের জীবনে। বিনা পাসপোর্টে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে গতকাল দুপুরে খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা মঞ্জুরাকে আটক করে। পরে বিজিবি মঞ্জুরার নামে বিনা পাসপোর্ট ও অনুমতি ছাড়া বাংলাদেশে প্রবেশ করার অপরাধে মামলা দিয়ে রাতে দোয়ারাবাজার থানায় হস্তান্তর করে।

মঞ্জুরা বেগম ভারতের আসামের কামরুপ জেলার চাংসারি থানার টাপার পাথার গ্রামের মুগুর আলির মেয়ে।

জানা যায়, পাঁচ বছর আগে মামলায় আসামি হয়ে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ভারতের আসামে গিয়েছিল সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউপির উত্তর কলাউড়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুস সাত্তার। সেখানে সাত্তারের সঙ্গে পরিচয় হয় মঞ্জুরা বেগমের। গড়ে ওঠে তাদের মাঝে প্রেমের সম্পর্ক। সাত্তার দেশে ফিরে আসার পর মোবাইলে চলে তাদের ভালোবাসব । দীর্ঘ পাঁচ বছর পর ভালোবাসার মহে মঞ্জুরা বেগম ছুটে এসেছেন বাংলাদেশে।

আরও পড়ুন

অসহায় বৃদ্ধের জন্য ইউএনওর ভালোবাসার অনন্য নজির

স্থানীয়রা জানান, দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউপির উত্তর কলাউড়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুস সাত্তার পাাঁচ বছর আগে তার এক বন্ধুর প্রেমে সহযোগিতা করায় মামলার আসামি হন। সেই মামলায় ওই বন্ধু জেল খাটেন, আর তিনি পালিয়ে যান ভারতের আসামে। সেখানে প্রায় বছরখানেক বসবাস করায় মঞ্জুরা বেগমের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে উঠে তার। বছরখানেক পরে সাত্তার চলে আসেন বাংলাদেশে। এরপর চলে যান বাহরাইন। সেখানে তিনি তিন বছর ধরে আছেন।

সম্পতি মঞ্জুরা বেগমের বিয়ের জন্য প্রায় কয়েক জায়গা থেকে প্রস্তাব আসে। এ বিষয়ে মঞ্জুরা সাত্তারকে জানান। পরে সাত্তার মঞ্জুরাকে তার বাড়ি বাংলাদেশে আসার ঠিকানা দেন। সেই ঠিকানা মতো গত মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে বাংলাদেশে চলে আসেন এই ভারতীয় তরুণী।