Asia আন্তর্জাতিক

আল-কায়দা জঙ্গি সন্দেহে ভারতে আটক ৯

আল-কায়দা জঙ্গি সন্দেহে পশ্চিমবঙ্গ ও কেরলায় অভিযান চালিয়ে নয় সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। এর মধ্যে মুর্শিদাবাদ জেলা থেকে আটক করা হয়েছে ছয়জনকে। তারা হলেন নাজমুস সাকিব, আবু সুফিয়ান, মইনুল মন্ডল, লিউ ইয়ান আহমেদ, আল মামুন কামাল এবং আতিউর রহমান। তারা প্রত্যেকেই মুর্শিদাবাদ জেলার বাসিন্দা।

বাকি তিনজনকে আটক করা হয় কেরলার এরনাকুলাম থেকে। তারা হলেন মুরশিদ হাসান, ইয়াকুব বিশ্বাস, মোসারফ হোসেন। এই তিনজনও পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা। যদিও কাজের সূত্রে বেশ কয়েক বছর ধরে পেরামবাভুর এলাকায় বসবাস করতেন। এই নয়জনই শ্রমিকের কাজ করতেন বলে জানা গেছে।

আরও পড়ুনঃ কাশ্মীরে ক্ষমতার অপব্যবহারের কথা স্বীকার ভারতীয় সেনাবাহিনীর

জঙ্গি সংগঠন আল-কায়দার সঙ্গে যোগসাজেশ থাকার অভিযোগে শনিবার কেরলা ও পশ্চিমবঙ্গের ১১টি জায়গায় অভিযান চালানো হয়। এরপর এই নয়জনকে আটক করা হয়। অস্ত্র ডেলিভারি দেওয়ার জন্য তারা কাশ্মীরে যাওয়ার পরিকল্পনা করছিলেন বলে জানতে পেরেছেন তদন্তকারী কর্মকর্তারা।
এনআইএ সূত্রে খবর প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, তারা প্রত্যেকেই ব্যক্তিগতভাবে সোশ্যাল মিডিয়া মারফত পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আল-কায়দার থেকে সন্ত্রাসীর পাঠ নিয়েছে এবং দিল্লিসহ আশপাশের এলাকায় বড়সড় নাশকতা করার ছক ছিল তাদের। গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও ভবনে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পুরো ভারতে সন্ত্রাস সৃষ্টি ও নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করাই ছিল তাদের প্রধান উদ্দেশ্য।

640.jpg

এনআইএ’এর মুখপাত্র ডিআইজি সোনিয়া নারাং জানান ‘আল-কায়দার এই মডিউলটি তহবিল সংগ্রহের ব্যাপারে সক্রিয়ভাবে প্রশ্রয় দিত এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ সংগ্রহের জন্য এই চক্রের কয়েকজন সদস্য দিল্লি যাওয়ার পরিকল্পনা করছিল। কিন্তু সন্দেহভাজন এই জঙ্গিদের আটক করার ফলে ভারতে বড়সড় নাশকতার ছক বানচাল করা গেছে।’

জঙ্গি গোষ্ঠীর সঙ্গে যোগসাজেশ থাকার অভিযোগ ওঠার পরই দীর্ঘদিন ধরেই এই নয় ব্যক্তির গতিবিধির ওপর নজর রাখা হচ্ছিল। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ নথি, ডিজিটাল যন্ত্র, জেহাদি সাহিত্য, ধারালো অস্ত্র, দেশীয় আগ্নেয়াস্ত্র, বোমা ও বিস্ফোরক তৈরির নথি। আটক ব্যক্তিদের আজই স্থানীয় আদালতে তোলা হতে পারে।