Bangladesh Sylhet

খালি পট চুরির অভিযোগে শিশুকে রড দিয়ে পেটালো

দোয়ারাবাজারে ১৩ বছরের এক শিশুকে দুধের খালি পট চুরি করার অপবাদ দিয়ে লোহার রড দিয়ে পিঠিয়ে গুরুতর আহত করেছেন রাসেল মিয়া নামের এক হোটেল ব্যবসায়ী। বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার বোগলাবাজার ইউনিয়নের বোগলাবাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। আহত শিশু হলেন, উপজেলার বোগলাবাজার ইউনিয়নের নেপালকুটি গ্রামের রিক্সাচালক রুবেল মিয়ার ছেলে জুয়েল মিয়া (১৩)। এ ঘটনায় রাতেই দোয়রাবাজার থানায় শিশুর পিতা রুবেল মিয়া বাদি হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ আগে উপজেলার বোগলাবাজারের হোটেল ব্যবসায়ী রাসেল মিয়ার হোটেলের কয়েকটা খালি দুধের পট কে বা কারা নিয়ে যায়। তার এই দুধের খালি পট জুয়েল মিয়া নিয়েছে সন্দেহে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাকে আটকে হোটেলের ভিতরে লোহার রড দিয়ে মারধর করেন। তার মারধরের চিৎকারে বাজারের লোকজনসহ স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ইউপি সদস্য বুলবুল মিয়া ও বোগলাবাজার কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মন্নান মিয়াসহ স্থানীয়রা তাকে রাসেল মিয়ার কাছ থেকে উদ্ধার করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দোয়ারাবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়। সেখানে ওই শিশু প্রাথমিক চিকিৎসা নেন। পরে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা করেন।

মজুরির টাকা চাওয়ায় কিশোরকে খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন

আহত শিশুর বাবা রিক্সা চালক রুবেল মিয়া অভিযোগ করে বলেন, তার ছেলে দুধের কোন খালি পট আনেনি। এরপরও কাদির মিয়ার ছেলে বাজারের হোটেল ব্যবসায়ী রাসেল মিয়া তাকে ঘরে ঢুকিয়ে লোহার রড দিয়ে মেরেছে। ছেলেটির সারা শরীরে আঘাতে চিহৃ রয়েছে। রাতে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছিলাম। শুক্রবার রাতে ছেলেকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসার পর ডাক্তাররা জখম গুরুতর দেখে পায়ের এক্সরে করতে বলেছেন। রুবেল মিয়া বলেন, আমি রিক্সা চালিয়ে সংসার চালাই। আমার এই শিশু ছেলের অপরাধটা কী এরখম মারধর করেছে। আমি এর বিচার চাই।

640.jpg

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হোটেল ব্যবসায়ী রাসেল মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি পরিচয় জানতে চান। পরে গণমাধ্যমকর্মী শুনে ফোন কেটে দেন। এর পর আর ফোন রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে দোয়ারাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নাজির আলম শুক্রবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও তদন্ত করে এসেছে। এ ব্যাপারে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি।