Bangladesh

জমিজমা বিরোধের জের- দুমকিতে কৃষক পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

দুমকি (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি,

পটুয়াখালীর দুমকিতে জমিজমার বিরোধের জের ধরে মালিকানা বিহীন পরার্থলোভী মামলাবাজ অসৎ ব্যক্তি কর্তৃক ভিত্তিহীন অভিযোগে মামলা ও থানায় সাধারণ ডায়েরী করে নিরীহ কৃষক পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার (২০ সেপ্টেম্বর) সকালে প্রেসক্লাব, দুমকির হলরুমে আয়োজিত জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে হয়রানির শিকার নিরীহ কৃষক পরিবারের পক্ষে আবদুস সোবাহান মৃধা ওই অভিযোগ করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে উপজেলার আংগারিয়া ইউনিয়নের ঝাটরা গ্রামের বাসিন্দা মৃত মেনাজ উদ্দিন মৃধার ছেলে আবদুস সোবাহান মৃধা অভিযোগ করেন, একই এলাকার মালিকানা বিহীন পরার্থলোভী মামলাবাজ অসৎ ব্যক্তি মৃত ইসমাইল মৃধার পুত্র শাহজাহান মৃধা জমিজমার ভাগবাটোয়ার নামে ভিত্তিহীন অভিযোগে আমি ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে বার বার মিথ্যে মামলা, থানায় সাধারণ ডায়েরি করে পুলিশি হয়রানী করে আসছে।

আরও পড়ুন : বড় বোনকে প্রেমিকের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায় ছোট বোনকে খুন

এযাবৎ পর্যন্ত একটি অভিযোগেরও সত্যতা মেলেনি। তার পরেও একটার পর একটা জিডি ও মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানি করছে। উল্লেখ্য, ঝাটরা গ্রামের মৃত ইসমাইল মৃধার দুই ছেলে ও দুই কন্যা সন্তানের মধ্যে শাহজাহান মৃধা প্রথম সন্তান।

ইসমাইল মৃধা পৈত্রিক সূত্রে ৫৫ শতাংশ জমির মালিক। তিনি জীবদ্দশায় ২২ শতাংশ জমি বিক্রি করেছেন। ইসমাইল মৃধার স্ত্রী লালভানু জীবদ্দশায় ৭.২৫ শতাংশ, ১ম ছেলে শাহজাহান দাতা হয়ে ২টি কবলা দলিলে ২৬.৭৫ শতাংশ, ছোট ছেলে সাহেব আলী ১৪ শতাংশ, বড় মেয়ে আছিয়া বেগম, ৬.২৫ শতাংশ, ছোট মেয়ে রওশনআরা বেগম ৬ শতাংশ মোট ৮২.২৫শতাংশ জমি বিক্রি করেছেন। মালিকানা ৫৫শতাংশের স্থলে বিক্রি করেছেন ৮২.২৫। কবলাদারদের কাছে প্রাপ্যতার চেয়ে ২৭.২৫ বেশী বিক্রি করে প্রতারণা করেছে।

640.jpg

কবলাদারের জমি বুঝিয়ে দিতে না পেরে ভাগবাটোয়ারার নামে অহেতুক মামলা মকর্দ্দমায় জড়িয়ে সময় ক্ষেপনসহ প্রতিপক্ষদের হয়রানী করে বেড়াচ্ছেন। আমি ওই দুষ্ট অসৎ ও পরার্থলোভী প্রতারকের পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে সিআর মামলা নং-৩৪৬/২০১৯ ও সিআর মামলা নং-৩৩৮/২০১৯ ও দুমকি থানায় বিভিন্ন সময়ের সাধারণ ডায়েরি করে হয়রানীর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

পাশাপাশি অভিযুক্ত শাহজাহান মৃধা ও তার ছেলে জাহাঙ্গীর মৃধার সকল অপতৎপড়তায় অহেতুক হয়রানী থেকে নিস্কৃতি পেতে সুশীল সমাজ, স্থানীয় প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি। এ বিষয়ে ঝাটরা গ্রামের মৃত ইসমাইল মৃধার ছেলে শাহজাহান মৃধা তাদের প্রাপ্যতার চেয়ে বেশী জমি বিক্রির প্রশ্নে কোন সদোত্তর দিতে পারেননি।