Cricket খেলাধুলা

দীনেশ কার্তিকের বদলে ইয়ন মরগ্যান হবেন কলকাতার অধিনায়ক!

বরাবরের মতো এবারের আসরেও তারকাখচিত দলগঠন করেছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের অন্যতম জনপ্রিয় দল কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)। টুর্নামেন্টের দুইবারের চ্যাম্পিয়নরা এবার তৃতীয় শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে নামবে। তবে বাস্তবতা হলো, ২০১৪ সালে নিজেদের দ্বিতীয় শিরোপা জেতার পর আর ফাইনালেই উঠতে পারেনি কেকেআর।

অন্যদিকে গত কয়েক মৌসুমে আধিপত্য দেখিয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস, চেন্নাই সুপার কিংস, সানরাইজার্স হায়দরাবাদের মতো দলগুলো। যার ফলে শিরোপা জিততে হলে নিজেদের সেরাটাই মাঠে দেখাতে হবে কলকাতাকে। আর এ লক্ষ্যে গুরুদায়িত্ব থাকবে অধিনায়ক দীনেশ কার্তিকের কাঁধে।

আরও পড়ুন : ইপিএলে লিভারপুলের বিপক্ষে টানা চার ম্যাচে হারলো ব্লু’রা

তবে ভারতের সাবেক অধিনায়ক সুনিল গাভাস্কারের মতে, এবারের আসরে কলকাতা ম্যানেজম্যান্ট অধিনায়কত্ব সঁপে দিতে পারে ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যানের হাতে। এক্ষেত্রে অবশ্য একটি শর্তও রেখেছেন গাভাস্কার। তার মতে, শুরুর কয়েক ম্যাচে ভালো করতে না পারলেই কার্তিকের জায়গায় মরগ্যানকে অধিনায়কত্ব দেবে কলকাতা।

স্পোর্টস তাককে দেয়া সাক্ষাৎকারে সুনিল গাভাস্কার বলেছেন, ‘কলকাতা নাইট রাইডার্স এমন একটা দল, যাদের খুবই সাজানো এবং বিধ্বংসী একটা ব্যাটিং অর্ডার রয়েছে। এবার ইয়ন মরগ্যানের অন্তর্ভুক্তি মিডলঅর্ডারে বাড়তি স্থিতিশীলতা এবং অভিজ্ঞতার সঞ্চার করেছে। সে নিজেও আক্রমণাত্মক খেলতে পারে।’

আরও পড়ুন : আইপিএলের তৃতীয় দিনে মাঠে নামবে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স-সানরাইজার্স

তিনি আরও যোগ করেন, ‘এমনকি এটাও হতে পারে, যদি প্রথম চার-পাঁচ ম্যাচে কলকাতার শুরুটা ভালো না হয়, তাহলে দীনেশ কার্তিকের বদলে ইয়ন মরগ্যানই হয়ে যাবেন দলের অধিনায়ক। কারণ আমাদের মধ্যে সবসময়ই এ প্রবণতটা দেখা যায়।’

640.jpg

এসময় কলকাতার অস্ট্রেলিয়ান পেসার প্যাট কামিনসের ব্যাপারেও কথা বলেছেন গাভাস্কার। এবারের নিলামের সর্বোচ্চ মূল্য সাড়ে ১৫ কোটি রুপি দিয়ে কামিনসকে কিনেছিল কলকাতা। ফলে তার ওপর একটা বাড়তি চাপ থাকবে বলে মনে করেন গাভাস্কার। এছাড়া ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সাম্প্রতিক সিরিজে ভালো করতে না পারাও একটা চাপ হিসেবে কাজ করবে বলে ধারণা গাভাস্কারের।

তার ভাষ্য, ‘আন্দ্রে রাসেলের মতো টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় খেলোয়াড়টি রয়েছে কলকাতায়। তবে একইসঙ্গে এবারের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড়ও রয়েছে তাদের দলে। সদ্য সমাপ্ত অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ড সিরিজে খুব একটা ভালো করতে পারেনি কামিনস। তাই তার ওপর একটা চাপ থাকবেই। এছাড়া আপনি যখন খুব দামি একজন খেলোয়াড়, তখন প্রাইস ট্যাগের একটা বিষয়ও থাকে। দেখার বিষয়, সে সবগুলো ম্যাচ খেলবে তো?’