জাতীয়

একজনে মারে,একজনে গ্রেফতার করে,আরেকজনে ছাড়ে: নূর

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মৎস্যভবন এলাকা থেকে আটক করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নূরুল হক নূরকে। আবার কয়েক ঘণ্টা পর মুচলেকা নিয়ে ছেড়েও দেওয়া হয়।

ছাড়া পেয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় গণমাধ্যমকে নূর বলেন, আমরা বুঝিনি কী কারণে আমাদের ধরে আনা হল আর কী কারণে ছাড়া হল। 

উল্লেখ্য, সোমবার সন্ধ্যায় বিক্ষোভ মিছিল থেকে নূরকে আটক করে পুলিশ। পরে তাকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হেফাজতে নেওয়া হয়। আটকের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই নূরকে ছেড়ে দেওয়ার কথা জানানো হলেও পুলিশ প্রহরায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রাথমিক স্বাস্থ্যগত পরীক্ষা শেষে তাকে আবারও ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়। পরে রাত ১২টার পর রাজধানীর মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয় থেকে নূরকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

ডিবি রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) এইচ এম আজিমুল হক জানান, নূরসহ আটক সবাইকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

নুরের বিরুদ্ধে তো ধর্ষণের কোনো অভিযোগ নেই: ডিএমপি কমিশনার

নূরের বড়ভাই নূরজামান গণমাধ্যমকে বলেন, ডিবি অফিস থেকে নূরকে উত্তর বাড্ডার বাসায় নিয়ে আসা হয়েছে। শরীরের অবস্থা বেশি ভালো নয়। প্রয়োজন মনে হলে তাকে আবার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে।

এদিকে, রাতে ডিবি অফিস থেকে বেরিয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় নূরুল হক নূর বলেন, আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা করা হয়েছে। মারধরের কারণে অনেকেই অসুস্থ হয়েছেন। পরে মুচলেকা নিয়ে আমাদেরকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা জানি না কেন গ্রেফতার করা হল আর কেন ছাড়া হল।

640.jpg

তিনি বলেন, রাষ্ট্রযন্ত্রের কোনও অঙ্গের সঙ্গে কারও মিল নাই, কাজে-কর্মে মিল নাই। এ কারণে একজনে মারে, একজনে গ্রেফতার করে, আর আরেকজনে ছাড়ে, এটাই চলছে।

এই যে আজ আমরা মার খেলাম, আমরা তো কোনও অপরাধী না। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলনটা শেষ করে আসছিলাম। কিন্তু কোনওরকম উস্কানি ছাড়াই পুলিশ আক্রমণ করল। আসলে আমরা বুঝি নাই, কী কারণে আমাদের ধরে আনা হল, আর কী কারণে ছাড়া হল।