জাতীয়

ধর্মকে ফেলে দেয়া যাবে না, রাষ্ট্র থেকে আলাদা রাখতে হবে

ধর্মকে ফেলে দেয়া যাবে না, কিন্তু রাষ্ট্র থেকে আলাদা রাখতে হবে বলে দাবি করেছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক, গবেষক ও ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির। মঙ্গলবার দেশীয় এক গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ দাবি জানান।

শাহরিয়ার কবির বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে ব্যাখ্যা দিচ্ছেন, সহনীয় ধর্মনিরপেক্ষতা যাকে বলে আর কি। তবে ধর্মকে তো আর ফেলে দেয়া যাবে না। কিন্তু রাষ্ট্র থেকে আলাদা রাখতে হবে। তুরস্কের কামাল আতাতুর্কের মতো ধর্মকে নাকচ করলে চলবে না। ধর্ম ধর্মের জায়গায় থাকবে আর রাষ্ট্র রাষ্ট্রের জায়গায়।

শেখ হাসিনার সরকারের আমলে রাষ্ট্র আর ধর্মকে আলাদা করার সুযোগ আছে কি না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, লড়াইটা ঠিক এখানেই। দেখা যাচ্ছে- আওয়ামী লীগ ক্রমশই হেফাজতের দিকে ঝুঁকছে, আর জামায়াতিরা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করছে। তাই আমরা এখনো লড়াইটা চালিয়ে যাচ্ছি এবং তা প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্ম পর্যন্ত চলবে।

আর পড়ুন : ভারতে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৭৫ হাজার ৮৩ জন, ১০৫৩ জনের মৃত্যু

যুদ্ধাপরাধের বিচারের জন্য ৪০ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন ৭২ এর সংবিধানে ফেরার জন্য লড়াইটা চালিয়ে যেতে হচ্ছে। শিক্ষা, নারী, সংস্কৃতি, কূটনীতি সবকিছু যদি সংবিধান অনুযায়ী চলে তাহলে সেখানেও পৌঁছাতে পারবো।

‘তবে আমি আশাবাদী যে, মানবিক সূচকে উন্নয়ন না বাড়িয়ে সৌদি আরবের মতো উন্নত রাষ্ট্রও হতে পারি। কিন্তু সৌদি আরব তো আমার কাছে আদর্শ রাষ্ট্র নয়,’ যোগ করেন তিনি।

640.jpg

বর্তমান সরকারের ক্ষমতায় থাকা নিয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি বলেন, বিরোধী দলের দুর্বলতার জন্যই তারা এখনও ক্ষমতায়। গণতন্ত্রের জবাবদিহিতার জন্য সংসদ এবং সংসদের বাইরে একটি শক্তিশালী বিরোধী দল থাকতে হয়। কিন্তু দেশে সে রকম কোনো দল নেই। বিএনপি দেউলিয়া হয়ে গেছে। কারণ তারা জামায়াতকে কিছুতেই ছাড়বে না। এটিই তাদের ধ্বংসের মূল কারণ।শাহরিয়ার কবির