জাতীয়

ইসলামী অনুশাসন ছাড়া ধর্ষণ বন্ধ করা যাবে না: জমিয়ত

ইসলামি অনুশাসন ছাড়া অন্য কোন উপায়ে ধর্ষণ বন্ধ করা যাবে না। ক্ষমতাসীন মহল বরাবরই জনগণের জান মাল ইজ্জত ও আব্রুর নিরাপত্তা দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। সারাদেশে সরকার দলীয় লোকদের মাধ্যমেই ধর্ষণের মত জঘন্য অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে। দলীয় লোকদের ব্যাপারে সরকারের নমনীয় দৃষ্টি বিবেকবান দেশ প্রেমিক মানুষকে আহত করেছে। নারী নির্যাতনকারী ও ধর্ষকদের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে সংগঠনটির ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গোলাম মহিউদ্দীন ইকরাম বলেন, নারী নির্যাতনকারী ও ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা ছাড়া দেশব্যাপী অব্যাহত নারী নির্যাতন ও ধর্ষণ বন্ধ হবে না।

সরকারি নির্দেশনা মেনে দুর্গাপূজা উদযাপনে করতে হবে

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ইসলামী অনুশাসন ছাড়া অন্য কোনো উপায়ে ধর্ষণ বন্ধ করা যাবে না। ক্ষমতাসীন মহল বরাবরই জনগণের জানমাল ও আব্রু-ইজ্জতের নিরাপত্তা দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে।

সারা দেশে সরকারদলীয় লোকদের মাধ্যমেই ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। দলীয় লোকদের ব্যাপারে সরকারের নমনীয় দৃষ্টি বিবেকবান দেশপ্রেমিক মানুষকে আহত করেছে।

সংসদে ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড পাস হলেও তার কার্যকারিতা নিয়ে এখনও সংশয় থেকে যাচ্ছে। অবিলম্বে দলীয় বিবেচনার ঊর্ধ্বে উঠে প্রকৃত অপরাধীকে শাস্তির আওতায় না আনলে দেশে যে ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসবে তার দায় সরকারকেই নিতে হবে।

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মুফতি জাকির হোসাইন কাসেমীর সভাপতিত্বে ও নগর সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আতাউর রহমান খানের পরিচালনায় এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

640.jpg

এতে বক্তব্য রাখেন মাওলানা শহীদুল ইসলাম আনসারী, মুফতি রেজাউল করীম, প্রিন্সিপাল মাওলানা বেলায়েত হোসাইন আল ফিরোজী, মাওলানা ইমরান হোসাইন, মাওলানা সুহাইল আহমদ, নিজাম উদ্দিন আল আদনান, হাফেজ মুহাম্মদ ইসলামাবাদী প্রমুখ।