আইন-আদালত

জিয়াউল হত্যা মামলা: একজনের ফাঁসি, যাবজ্জীবন ২

জামালপুরে মোটরসাইকেল চালক জিয়াউল হক হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি ও দুইজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে জেলা ও দায়রা জজ আদালত। রোববার দুপুরে বিচারক মো. জুলফিকার আলী খান এই দণ্ডাদেশ দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন, ইসলামপুর উপজেলার করইতার গ্রামের নবাব আলী খানের ছেলে মাহবুবুর রহমান বুলবুল। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, মেলান্দহ উপজেলার মাঝবন্দ নাংলা গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে মনির ও গোবিন্দপুর নাংলা গ্রামের সুলতানের ছেলে বাবু।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নির্মল কান্তি ভদ্র জানান, গত ২০১১ সালের ৫ অক্টোবর সকালে ইসলামপুর উপজেলার ধর্মকুড়া শান্তিপাড়া গ্রামের সামিউল হকের ছেলে মোটরসাইকেল চালক জিয়াউল হককে পার্শ্ববর্তী করইতার গ্রামের বুলবুল জামালপুরের নান্দিনায় শ্বশুরবাড়িতে যাওয়ার জন্য মোটরসাইকেল ভাড়া নেয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরদিন ৬ অক্টোবর দুপুরে মেলান্দহ উপজেলার চারাইলদার পাথালিয়া গ্রামের মতিবর হাজির ধানক্ষেত থেকে জিয়াউল হকের হাত-পা বাঁধা অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ব্রাজিলে ছিনতাইকারির গুলিতে বাংলাদেশি যুবক নিহত

640.jpg

তিনি বলেন, পরে ওইদিনই নিহতের স্ত্রী মোছা. বিউটি বেগম মেলান্দহ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। আদালত ১৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৪ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে মাহবুবুর রহমান বুলবুলকে মৃত্যুদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড ও দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড এবং মনির ও বাবুকে যাবজ্জীবনসহ ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড ও দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মাহবুবুর রহমান বুলবুল পলাতক রয়েছে।