America আন্তর্জাতিক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: চার অঙ্গরাজ্যে বিপদের মুখে ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মধ্যাঞ্চলীয় উইসকনসিন ও মিশিগান রাজ্যে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন। এমন তথ্যই জানাচ্ছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন পরিচালিত এক জনমত জরিপ। তবে অ্যারিজোনা ও নর্থ ক্যারোলাইনায় দুজনের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

২০১৬ সালের নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প এই চারটি অঙ্গরাজ্যের সবগুলোতেই বিজয়ী হয়েছিলেন। এর যেকোনো একটিতে হারলে ট্রাম্পের জন্য ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট সংগ্রহ করা কঠিন হয়ে পড়বে। এসব রাজ্যকে বলা হচ্ছে ব্যাটলগ্রাউন্ড। মূলত এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে উল্লিখিত এই চারটিসহ মোট আট রাজ্যে।

৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এর মাত্র তিনদিন আগে সিএনএন পরিচালিত এই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হলো। তাতে দেখা যাচ্ছে, যারা আগাম ভোট দিয়েছেন তাদের ভোট পাওয়ার ক্ষেত্রেও বাইডেন বড় ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন। এই ব্যবধানই চূড়ান্ত বিজয়ের বিষয়টি নিষ্পত্তি করতে পারে।

সিএনএন পরিচালিত ওই জনমত জরিপের ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, অ্যরিজোনাতে সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন শতকরা ৫০ ভাগ ভোট পাবেন আর ট্রাম্প পাবেন ৪৬ ভাগ। অন্যদিকে উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে শতকরা ৫২ শতাংশ ভোট পাবেন জো বাইডেন, সেখানে ডোনাল্ড ট্রাম্প পাবেন শতকরা ৪৪ শতাংশ ভোট।

যুক্তরাষ্ট্রে আগাম ভোটের নতুন রেকর্ড

ফলে নির্বাচনের শেষ কয়েকদিনে মধ্য-পশ্চিমাঞ্চলীয় দোদুল্যমান অঙ্গরাজ্যগুলোর ভোটারদের মন জয়ের চেষ্টায় জোর প্রচারণা চালাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার ডেমোক্র্যাট প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেন। এই রাজ্যগুলোর ভোট আসন্ন এই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের জয়-পরাজয়ের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

মঙ্গলবারের নির্বাচনের আগে জরিপে সারা দেশে ডোনাল্ড ট্রাম্পের তুলনায় এগিয়ে রয়েছেন জো বাইডেন। তবে রিপাবলিকানদলীয় বর্তমান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে ব্যবধান বেশ কয়েকটি রাজ্যে খুব অল্প। এসব রাজ্যের ভোটাররা যে কোনো প্রার্থীকেই ভোট দিতে পারেন এবং মঙ্গলবারের নির্বাচনের ফলাফল গড়ে দিতে পারেন।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে সাড়ে নয় কোটির বেশি ভোটার আগাম ভোট দিয়েছেন। তাদের মধ্যে সাড়ে ডাকযোগে ভোট দিয়েছেন পাঁচ কোটি ভোটার। সব মিলিয়ে গত এক শতকের মধ্যে এবারই যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়তে যাচ্ছে। ডেমোক্র্যাট সমর্থকরাই আগাম ভোট দিয়েছেন বেশি।