Bangladesh Dhaka

গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেঁচে থাকা কঠিন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কারণে

 

গাজীপুর প্রতিনিধি ,মোঃ শফিকুলইসলাম দুখু: গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেঁচে থাকা কঠিন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কারণে।গার্মেন্টস শিল্প বাণিজ্য থাকায় গার্মেন্টস এর প্রতি আস্থাশীল হয়েছে শত শত পরিবার। এখন গার্মেন্টসের চাকরি নয় তো যেন সোনার হরিণ।গার্মেন্টস শ্রমিকরা পাচ্ছে না চাকরি ঘুরতে হচ্ছে মাসের-পর-মাস মিলছেনা চাকরি পড়তে হচ্ছে দালালদের চক্করে।

গার্মেন্টস শ্রমিকদের মাসিক বেতন 8.000 দুইশত টাকা, তার মাঝে হাতিয়ে নিচ্ছে অগ্রিম তিন থেকে চার হাজার কখনো নিচ্ছে 5000 টাকা, গার্মেন্টসের গেটে স্থায়ী এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিদের অনুমোদিত ছাড়া এখন চাকরি নেওয়া ভীষণ কঠিন হয়েছে প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কাছে চাকরির জন্য গেলে বলে লাগবে কিছু অগ্রিম টাকা। এডমিন অথবা পিএম তাদেরকে দিতে হবে মিষ্টি খাওয়ার জন্যে। এক ভুক্তভোগী গার্মেন্টস শ্রমিক আমাকে জানান ভাই আমরা আসছি গ্রামে বাড়ি থেকে কোথায় পাবো টাকা।গার্মেন্টসের পিএম অথবা এডমিন বলে অমুকের সাথে যোগাযোগ করুন মিলবে চাকরির দেখা ভোগান্তি শ্রমিকরা দালালদের চক্রের।গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেঁচে থাকা কঠিন প্রভাবশালী ব্যক্তিদের কারণে।

গাজীপুরে ঝুটের গোডাউনে আগুন

দু’মুঠো খাবার আশায় পরিবার স্বজন প্রীতি রেখে আসেন দূর-দূরান্ত থেকে চাকরির আশায় শ্রমিকরা,তাদের পেটে লাথি মারছেন প্রতাপশালী ব্যক্তিরা। আরো আছে নানান বাহানা নিচ্ছেনা পুরুষ শ্রমিক নিয়োগ পাচ্ছেন নারী শ্রমিক পুরুষদের ঘরে বসে থাকার মত চুরি পরে।এই নিয়ে দাম্পত্য জীবনে কলহ নষ্ট হচ্ছে অনেক দাম্পত্য জীবন।

গার্মেন্টস শ্রমিকদের অভিযোগ বাংলাদেশ সরকারের কাছে এবং শিল্প বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। গার্মেন্টস শ্রমিকদের উপর দৃষ্টিভঙ্গি রাখেন। আমরাওতো মানুষ আপনারা শুধু আপনাদের নিয়ে ব্যস্ত,নিম্ন শ্রমিকদের কি চোখে পড়ে না। আমরা কি দুমুঠো ভাত পরিবার-স্বজনদের মুখে তুলে দিতে পারি না। শ্রমিক বাঁচান, বাঁচবে দেশ নয়তো নষ্ট হবে পরিবেশ।

আরও পড়ুন

সাতহ্মীরা কালিগঞ্জে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদনবিহীন ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছে মোবাইল কোর্ট

সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার শীতলপুর গ্রামে পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদনবিহীন ‘মেসার্স ব্রাদ্রার্স ব্রিকস’ ভেঙে গুড়িয়ে দিয়ে মোবাইল কোর্ট। সোমবার দুপুর দু’টোর দিকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ নূর আমিনের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

পরিবেশ অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগের সহকারি পরিচালক সরদার শফিকুল ইসলাম জানান, কালিগঞ্জের শীতলপুরের মেসার্সা ব্রাদ্রার্স ব্রিকস এর মালিক আব্দুল ওয়াদুদ ২০১৪ সাল পর্যন্ত ভাটার লাইসেন্স নবায়ন করলেও ২০১৩ সালে নতুন আইন হওয়ায় পরবর্তীতে তিনি আর নবায়ন করেননি। ভাটাটি উপজেলা সদর থেকে এক কিলোমিটারের মধ্যে, ৫০০ মিটারের মধ্যে হাসপাতাল, ভাটার পাশে বিজিবি ক্যাম্প রয়েছে।

যা সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ভাটা পরিচালনা করা হয়। ভাটার কার্যক্রম বন্ধের জন্য পরিবেশ অধিদপ্তর ও কালিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে কয়েকবার নোটিশ দেওয়া হলেও তা উপেক্ষা করে মালিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। একপর্যায়ে সোমবার দুপুর দু’টো থেকে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ নূর আমিনের নেতৃত্বে পরিচালিত মোবাইল কোর্ট ওই ভাটা ভাঙতে শুরু করে। বিকেল চারটার দিকে ভাঙা শেষ হয়।