Bangladesh Sylhet

রায়হান হত্যা মামলা: এসআই আকবর গ্রেফতার

রায়হান হত্যা মামলা : সিলেটের বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়িতে রায়হান হত্যা মামলা র প্রধান আসামি হয়েছেন।সোমবার দুপুরে সিলেটের কানাইঘাট সীমান্ত থেকে এসআই আকবর কে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আরো পড়ুন>>> আজ এসআই আকবরের পলায়নে কে জড়িত জানা যাবে

১১ অক্টোবর ভোরে সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত হন নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার রফিকুল ইসলামের ছেলে রায়হান উদ্দিন আহমেদ। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। সেই থেকে পলাতক ছিলেন বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া।

আরো পড়ুন>>> এসআই আকবর ভারতে পালিয়েছে : দাবী পিবিআইর

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক মহিদুল ইসলাম করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তার পরিবর্তে আলোচিত এ মামলার নতুন তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে পিবিআইয়ের পরিদর্শক আওলাদ হোসেনকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

পিবিআই সিলেটের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ খালেদ উজ জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, রায়হান হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক মহিদুল ইসলামসহ তদন্ত সংশ্লিষ্ট পিবিআই সিলেটের পাঁচজন পরিদর্শক, একজন উপ-পরিদর্শক (এসআই) ও দুজন কনস্টেবল করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তাই মঙ্গলবার তদন্ত কর্মকর্তা বদল করা হয়েছে।

এর আগে পুলিশ সদর দফতরের নির্দেশনায় ১৩ অক্টোবর দেশ-বিদেশে আলোচিত এই হত্যা মামলা পিবিআইতে স্থানান্তর করা হয়। ওইদিন রাতেই মামলার প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল বাতেনের কাছ থেকে মামলার তদন্তভার বুঝে নেন পিবিআইয়ের পরিদর্শক মহিদুল ইসলাম। এরপর থেকে তিনিই মামলাটি তদন্ত করে আসছিলেন।

গত রোববার (১ নভেম্বর) রাতে করোনার নমুনা পরীক্ষায় পরিদর্শক মহিদুল ইসলামসহ পিবিআই সিলেটের পাঁচ পরিদর্শক ও আরও আটজনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়।

উল্লেখ্য, ১১ অক্টোবর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে রায়হানের মৃত্যু হয়।

রায়হান সিলেট নগরের আখালিয়ার নেহারিপাড়ার বিডিআরের হাবিলদার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি নগরের রিকাবিবাজার স্টেডিয়াম মার্কেটে এক চিকিৎসকের চেম্বারে চাকরি করতেন।

এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর রাতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু আইনে এসএমপির কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি।