Bangladesh Sylhet আইন-আদালত

নবীগঞ্জে সেজু হত্যার রহস্য উদঘাটন

আলী জাবেদ মান্না, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি:নবীগঞ্জে সেজু হত্যার রহস্য উদঘাটন। হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জে ব্যাটারিচালিত অটোরিক্সা চালক আবিদ উল্ল্যা সেজু হত্যার দায় শিকার করে আমীর মিয়া নামে একজন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।জবানবন্দিতে তিনি উল্লেখ করেন, অটোরিক্সা ছিনতাই ঘটনার কোন সাক্ষী না রাখতেই চালককে চারজন মিলে হত্যা করা হয়েছে।

(১২ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টায় হবিগঞ্জের পুলিশ সুপারের (এসপি) কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।এর আগে গত বুধবার (১০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে পুলিশ আমির মিয়াকে (৩২) তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।( ১১ নভেম্বর) হবিগঞ্জের জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক নূরুল হুদা ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দি রেকর্ড করেছেন।স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির বরাত দিয়ে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দুদিন আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ২৪ অক্টোবর চারজন মিলে সেজুর অটোরিক্সাটি ১শ টাকায় ভাড়া করেন।

সেদিন সন্ধ্যায় নবীগঞ্জের ওসমানী রোড থেকে চারজনের মধ্যে সোহাগ ওরফে তোফায়েল, শোয়েব মিয়াসহ তিনজন অটোরিক্সায় উঠে তিমিরপুরের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে গাজীরটেক পয়েন্ট থেকে এতে উঠেন আমীর মিয়া। পরে অটোরিক্সাটি তিমিরপুর এনার্জি ব্রিকফিল্ডের পেছনে নির্জন জায়গায় গেলে চারজন মিলে চালক সেজুর গলায় ফাঁস দেন।পরে একটি ছোরা দিয়ে তার ডান হাতের কব্জি ও পায়ের রগ কেটে এবং মাথায় আঘাত দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

২৪ অক্টোবর সারারাত নিখোঁজ থাকার পর ২৫ অক্টোবর সেজুর বাবা শহীদ উল্ল্যাহ নবীগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ২৭ অক্টোবর উপজেলার পূর্ব তিমিরপুর থেকে সেজুর লাশ উদ্ধার হয়।এক পর্যায়ে ঘটনার ১৭ দিনের মাথায় পৃথক সময়ে পুলিশ আমির মিয়া, শোয়েব মিয়া ও সোহাগ ওরফে তোফায়েলকে গ্রেফতার করেছে। তবে আরও একজন এখনও পলাতক।

নবীগঞ্জে নারী নির্যাতন মামলায় ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী মিলাদ গ্রেফতার

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনোয়ার হোসেন জানান, গ্রেফতার তিনজনের একজন আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন। দুজন কারাগারে রয়েছেন। বাকি একজনকে গ্রেফতার ও ছিনতাই হওয়া অটোরিক্সাটি উদ্ধারে অভিযান চলছে।তিনি আরও জানান, আমীর মিয়া ছিনতাই হওয়া অটোরিক্সা ক্রয় করে থাকেন।

সেজুর অটোরিক্সাটি ৫০ হাজার টাকায় ক্রয়ের জন্য বাকী তিনজনের সাথে তার চুক্তি হয়েছিল।সংবাদ সম্মেলনে নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী এবং নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আজিজুর রহমানসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।