Bangladesh

পরিবহণ মালিক-শ্রমিক দ্বন্দ্বে নওগাঁয় সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ

 

আমিনুল জুয়েল, নওগাঁ প্রতিনিধিঃ
পরিবহণ মালিক-শ্রমিকদের দ্বন্দ্বে উত্তরের জেলা নওগাঁয় সব রুটে বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। শ্রমিকদের বিরুদ্ধে সড়কে চাঁদাবাজি ও রুট নিয়ন্ত্রণের অভিযোগ এনে জেলার অভ্যন্তরীণ সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ করেছে জেলা পরিবহণ মালিক সমিতি।

বুধবার ১৮ নভেম্বর সকাল থেকে নওগাঁ জেলার অভ্যন্তরীণ সকল রুটে যানবাহন বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

নওগাঁ জেলা পরিবহণ মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, চাঁদাবাজি ও সড়ক নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শ্রমিকদের সঙ্গে তাঁদের দ্বন্দ্ব দীর্ঘদিনের। অবৈধভাবে শ্রমিকদের এই দখলদারি, চাঁদাবাজিসহ সকল সমস্যা সমাধান করে পুনরায় এসকল রুটে বাস চলাচল স্বাভাবিক করা হবে।

এদিকে, নতুন শ্রমিক নেতারা নওগাঁ, পাবনা ও কিশোরগঞ্জ রুট দখলের চেষ্টা করলে দ্বন্দ্ব চরমে ওঠে। বিষয়গুলো নিরসন না হওয়া পর্যন্ত সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন মালিক পক্ষের নেতারা।

হঠাৎ করেই সব রুটের বাস বন্ধ করার সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে শ্রমিক নেতারা জানান, পাবনা ও কিশোরগঞ্জ রুটে নওগাঁ জেলার কোন পরিবহন ছিল না। এতে শ্রমিকরা বঞ্চিত হয়ে আসছে। তাই নিজস্ব উদ্যোগে দুটি বাস চলাচলের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এতে মালিকপক্ষের বাঁধা দেওয়াটা অযৌক্তিক। আমরা শুধু যাত্রীদের সেবা দেওয়ার উদ্দেশ্যেই এই কাজটি করেছি। কোন চাঁদাবাজি বা রুট দখল আমাদের উদ্দেশ্য নয়।

সকাল থেকেই জেলার বালুডাঙ্গা বাস টার্মিনাল থেকে অভ্যন্তরীণ রুটে বাস চলাচল বন্ধ আছে। তবে দূরপাল্লার কিছু পরিবহণ যাত্রী নিয়ে টার্মিনাল ছেড়ে গেছে।

এদিকে, পূর্ব ঘোষণা ছাড়া পরিবহন বন্ধ করে দেওয়ায় চরম বিড়ম্বনায় পড়েছেন যাত্রী সাধারণ। সাধারণ যাত্রীরা বলছেন, মালিক গ্রুপ ও শ্রমিক ইউনিয়নের দ্বন্দ্বের কারণে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন তারা। শহর থেকে উপজেলাগুলোতে অফিসগামীরা এই দুর্ভোগের খুব তাড়াতাড়ি অবসান চেয়ে সমাধানের দাবি জানান।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

নানা হওয়ার খবরে ভীষণ খুশী দাপুটে অভিনেতা ডিপজল

 

ঢাকাই চলচ্চিত্রের দর্শকপ্রিয় অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল । সম্প্রতি জানা যায়, তার কন্যা ওলিজা মনোয়ার দ্বিতীয় সন্তানের মা হতে যাচ্ছেন। সোমবার (১৬ নভেম্বর) ওলিজার বেবি শাওয়ার অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ সময় তার বাবা মনোয়ার হোসেন ডিপজল, মা ও তার স্বামী অর্পণ উপস্থিত ছিলেন।

অভিনেতা ও প্রযোজক ডিপজলের মেয়ে ওলিজা মনোয়ার আবারও মা হতে চলেছেন। গত বছর ১০ নভেম্বরে ওলিজার প্রথম মা হওয়ার খবর জানা যায়। এক বছরের ব্যবধানে আবারও সুখবর দিলেন তিনি।

ওলিজা তার ফেসবুক তার মা হওয়ার খবরটি জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, ১৬ নভেম্বর ওলিজার দ্বিতীয় বেবি শাওয়ার অনুষ্ঠিত হয়েছে। পারিবারিক ওই আয়োজনে দুই পরিবারের ঘনিষ্ঠজনের উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

দ্বিতীয় বেবি শাওয়ার অনুষ্ঠানের কিছু ছবিও ফেসবুকে শেয়ার করেছেন ওলিজা। সেখানে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘সবকিছুর জন্য আলহামদুলিল্লাহ। সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করছি।’

শাকিব খানের সঙ্গে ঢাকাই সিনেমাতে হৃদি শেখ 

নানা হওয়ার খবরে ভীষণ খুশী দাপুটে অভিনেতা ডিপজল। জাগো নিউজকে তিনি বলেন, ‘ওলিজা আমার খুব আদরের মেয়ে। আবারও তার ঘরে নতুন অতিথি আসছে। সে আমারও কাঙ্ক্ষিত অতিথি। আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জানাই। সবার কাছে আমার মেয়ে, মেয়ের জামাই ও তাদের সন্তানের জন্য দোয়া চাই।’

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের জুনে মেয়ে ওলিজার বিয়ে দেন ডিপজল । তার মেয়ের জামাতার নাম অর্পণ। তিনি পেশায় একজন ব্যবসায়ী। পারিবারিকভাবে এই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

ওলিজা লন্ডনে বিজনেস স্টাডিজ নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া ও মেকআপ নিয়েও পড়াশোনা করেছেন ডিপজলকন্যা। ‘ওলিজা মনোয়ার লন্ডন মেকওভার স্টুডিও’ নামে ঢাকায় তার একটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করে ওলিজা গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ এখন সবকিছু ঠিক আছে। আমি সুস্থ আছি। সবার দোয়া প্রার্থনা করছি।’

ওলিজা ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময় ব্যবসায়ী অর্পণের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। অর্পন-ওলিজার এটি দ্বিতীয় সন্তান। গত বছর এই দম্পতির ঘর আলো করে আসে তাদের প্রথম পুত্রসন্তান।

ওলিজা মনোয়ার লন্ডনে বিজনেস স্টাডিজ নিয়ে পড়াশোনার পাশাপাশি ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া এবং মেকআপ নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। সেখানে একটি সরকারি কলেজে ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়ার উপর শিক্ষকতাও করেন তিনি।

ওলিজার মেকআপম্যান হিসেবে কাজ করার সৌভাগ্য হয়েছে বিশ্বখ্যাত নির্মাতাদের সিনেমায়। টিভি মেকআপ, ফিল্ম মেকআপ, থিয়েটার মোকআপসহ সবগুলো মেকআপে পারদর্শী ওলিজা।