Home আন্তর্জাতিক Asia সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে শিয়াল বললেন ইমরান খান

সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে শিয়াল বললেন ইমরান খান

সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে শিয়াল বললেন ইমরান খান

নওয়াজ শরীফকে শিয়াল বললেন ইমরান খান । পাকিস্তানের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে কড়া ভাষায় ভর্ৎসনা করেছেন দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান । সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফকে শিয়াল বললেন ইমরান খান ।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার বরাতে জানা যায়, ইমরান খান অভিযোগ করে বলেন, নওয়াজ শরিফ পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর মধ্যে বিদ্রোহ সৃষ্টির অপচেষ্টা করছেন। দেশের রাজনীতিতে তাদের যুক্ত থাকার বিষয়টি টেনে এনে সেনাবাহিনী ও আইএসআইয়ে (পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা) পরিবর্তন করার কথা বলছেন।

মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের নতুন সরকারকে অবশ্যই ফেরাতে হবে

গত ১৬ অক্টোবর পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টের (পিডিএম) ব্যানারে পাকিস্তানের বিরোধী দলগুলো যৌথ শোভাযাত্রার আয়োজন করে। ওই শোভাযাত্রায় ভার্চুয়াল বক্তৃতায় নওয়াজ দেশটির সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া ও আইএসআই–প্রধান লেফট্যানেন্ট জেনারেল ফাইয়াজ হামিদের বিরুদ্ধে সাধারণ নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগ করেন।

এ অভিযোগের জবাবে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, শরিফ লন্ডনে বসে শিয়ালের মতো সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে কথা বলছেন। শনিবার খাইবার পাখতুনখাওয়ার মিনগোরাতে জনগণের সামনে দেয়া এক ভাষণে ইমরান আরও বলেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী এখন দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে বিদ্রোহ সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান প্রমাণ করতে চান, বিশ্বব্যাপী মুসলিম জনগোষ্ঠীর স্বার্থ নিয়ে তিনি বেশ সচেতন। কিন্তু, চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের নির্যাতিত উইঘুর মুসলিম জনগোষ্ঠীদের ব্যাপারে কেন তিনি নীরব, এমন প্রশ্ন উঠছে চারদিকে। চীনের সঙ্গে ইমরান খান সরকারের মিত্রতা নীতির কারণে উইঘুর প্রশ্নে তিনি কোনো উচ্চবাচ্য করেন না বলে মনে করা হয়।

দক্ষিণ এশিয়ায় পাকিস্তান তার আধিপত্য ঠিক রাখতে কিংবা অবস্থান বজায় রাখতে চীনের সঙ্গে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সহায়তামূলক নীতিতে অগ্রসর হচ্ছে। দেশটির অন্যতম মিত্র শক্তি চীন এখন এশিয়ার অন্যতম পরাশক্তি। উভয় দেশের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ভারত। ভারতের সঙ্গে পাল্লা দিতে, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে দুই দেশই চায় বন্ধুত্ব রক্ষা করে চলতে। অন্যদিকে, চীন সরকার জিনজিয়াং প্রদেশের ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের ওপর ক্রমাগত নির্যাতন চালাচ্ছে এবং সেখানে মানবাধিকার চরমভাবে ব্যহত হচ্ছে বলে বিভিন্ন সময় আন্তর্জাতিক মহল উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। কিন্তু চীন কর্তৃক উইঘুরের নির্যাতিত মুসলিমদের বিষয়টি এ সম্পর্কের ক্ষেত্রে কোনো বাধাই মনে হয়নি ইমরান খানের কাছে।

এদিকে, সারাবিশ্বে ইসলামভীতি ছড়িয়ে দেওয়ার বিরুদ্ধে ইমরান খান বিভিন্ন সময় বক্তব্য রেখেছেন। এর পাশাপাশি সম্প্রতি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর বক্তব্যকে ইসলাম ধর্ম বিরোধী উল্লেখ করে সেটার বিরুদ্ধেও সোচ্চার ভূমিকায় দেখা গেছে তাকে। এর অর্থ হল, তিনি মুসলিম বিশ্বে ইসলাম ধর্মের স্বার্থের বিষয়ে লড়াকু, এমন ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠায় নজর দিচ্ছেন। কিন্তু চীনের উইঘুর মুসলিমরা চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সরকারের নিপীড়নের স্বীকার, সেই বিষয়ে আজ অবধি তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ওয়াাশিংটন পোস্টের বিশ্লেষক ইশান থারুর উইঘুর প্রশ্নে ইমরান খানের মুখ বন্ধ থাকাকে ‘ভণ্ডামি’ আখ্যা দিয়েছেন।

কিছুদিন আগে ইমরান খান মুসলিম বিশ্বের নেতাদের উদ্দেশ্যে চিঠি লেখেন। এই চিঠিতে বিশ্বব্যাপী ইসলামভীতির বিরুদ্ধে সংঘবদ্ধ লড়াইয়ের আহ্বান জানান তিনি। মেহেদি হাসান নামের একজন রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলেন, চীন উইঘুর মুসলিমদের ওপর যা করছে তা পাশ্চাত্যে ইসলামভীতির কাছে কিছুই না। তিনি প্রশ্ন তোলেন, ইমরান খান বা সহযোগীরা কি চীন সরকারের কাছে চিঠি লিখবেন বা তার পরিবর্তে কিছু করবেন?

ইমরান খানকে চীনা সরকার কর্তৃক উইঘুর মুসলিমদের নির্যাতনের বিষয়ে বারবার প্রশ্ন করা হলেও তার পক্ষ থেকে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে অথবা তিনি বা তার সরকার নীরব থেকেছেন। অথচ সারাবিশ্বে বিষয়টি নিয়ে মানবাধিকার কর্মীসহ সবাই সোচ্চার। সূত্র: এএনআই।