গাইবান্ধার বাদিয়াখালী টু তালুকজামিরা রাস্তায় বেড়েই চলেছে ছিনতাই, নীরব ভূমিকায় প্রশাসন

গাইবান্ধা সদর উপজেলার বাদিয়াখালী থেকে তালুকজামিরা রাস্তায় আবারো শুরু হয়েছে ছিনতাই নীরব ভূমিকা পালন করছেন পুলিশ প্রশাসন। জানা যায় ৩ এপ্রিল রাত আটটার পর বাদিয়াখালী ইউনিয়নের দূর্গাদহ গ্রামের মৃত ঈশ্বর চন্দ্র সরকারের ছেলে অটোচালক কৃষ্ণ চন্দ্র সরকার পুরাতন বাদিয়াখালী বাজার থেকে তালুক জামিরা আসার পথে লাঙ্গল ভাংগা ব্রীজের পূর্বপাশে চারজন অজ্ঞাত যুবক তাকে পথ রোধ করে অটোবাইক টি কেড়ে নিতে চায় ।

কিন্তু সহজে সেই অটোবাইকটি না দেওয়ার কারণে ধারালো ছুরি দিয়ে কৃষ্ণচন্দ্র কে হত্যার উদ্দেশ্যে পেটে আঘাত করে ছিনতাইকারীরা। এমতাবস্থায় বাদিয়াখালীর দিকে একটি ট্রাক আসলে ছিনতাইকারীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। পরে স্থানীয়রা আহত কৃষ্ণচন্দ্র কে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ফুলছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যান। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কৃষ্ণচন্দ্র ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। উল্লেখ্য যে, কিছুদিন আগে এই রাস্তার মাঝ পথ শৌলতাড়ী ব্রীজনামক স্থানে অটোচালককে খুন করে অটোরিকশা ছিনতাই করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা।

পরের দিন সকালে ব্রিজের নিচ থেকে সেই অটোচালকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এই রাস্তাটি বাদিয়াখালী থেকে তালুকজামিরা যাতায়াতের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম হওয়ায় প্রতিনিয়ত সাইকেল, মোটরসাইকেল, সিএনজি, অটোরিকশা, পিকআপ ভ্যান, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে।

কিন্তু রাত আটটার পর কেউ সেই রাস্তা দিয়ে আর চলতে চায় না রোডে ছিনতাই হওয়ার কারণে। এমতাবস্থায় জনগণের নিরাপত্তার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল কারী ও স্থানীয়রা। এবিষয়ে গাইবান্ধা সদর থানার ওসির সরকারি নাম্বারে ফোন দেয়া হলে তিনি রিসিভ করেন নি।