ফাইনালে ভারত

48
স্পোর্টস ডেস্ক :

তৃতীয় টেস্ট দু’দিনে হেরেছিল। চতুর্থ টেস্ট আরেকটা দিন বেশি খেলতে পেরেছে ইংল্যান্ড। কিন্তু তাতে লজ্জা আরও বেড়েছে বৈ কমেনি তাদের। ১৬০ রানে পিছিয়ে পড়া রুট-স্টোকসরা দ্বিতীয় ইনিংসে গুটিয়ে গেছে ১৩৫ রানে। তাদেরকে ইনিংস ব্যবধানে হারের লজ্জায় ডুবিয়ে চার ম্যাচের সিরিজ ৩-১ ব্যবধানে জিতে লর্ডসের টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে উঠেছে ভারত। ১৮ জুন থেকে ক্রিকেট মক্কায় নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ফাইনাল খেলবে তারা।

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের ২০৫ রানের জবাবে ৭ উইকেটে ২৯৪ রান তুলে দ্বিতীয় দিন শেষে ৮৯ রানে এগিয়ে ছিল ভারত। ঋষভ পান্তের সেঞ্চুরির পর ওয়াশিংটন সুন্দর ৬০ রানে অপরাজিত ছিলেন, সঙ্গে ছিলেন ১১ রানে অক্ষর প্যাটেল। পান্তের সঙ্গে ১১৩ রানের জুটির পর অক্ষরের সঙ্গেও শতাধিক রানের জুটি গড়ে ইংলিশদের হতাশা আরও বাড়িয়েছেন সুন্দর। কিন্তু দারুণ একটা ইনিংসের পরিসমাপ্তি হয়েছে আফসোসের মধ্য দিয়ে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে সেঞ্চুরিবঞ্চিত হন সুন্দর। অন্য প্রান্তে ৫ বলের মধ্যে ৩ উইকেট পড়ে গেলে থমকে যেতে হয় তাকে। ১৭৪ বলে ৯৬ রান নিয়ে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন এই বাঁহাতি। তার ইনিংসে ছিল ১০ চার ও ১ ছক্কা। চেন্নাইয়ের দ্বিতীয় টেস্টেও সঙ্গীর অভাবে সেঞ্চুরি থেকে বঞ্চিত হয়েছিলেন তিনি (৮৫*)।

অক্ষর আর অশ্বিনের বাম-ডান স্পিনের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারেনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়া ইংল্যান্ড। টিকেছে তারা ৫৫ ওভারেরও কম। প্রথম ইনিংসে দুজনে মিলে ৭ উইকেট শিকারি অক্ষর ও অশ্বিন এবার অন্য কাউকে উইকেট নেওয়ার সুযোগই দেননি। ৪৮ রান খরচায় অক্ষরের শিকার ৫ উইকেট। টেস্ট অভিষেকের পর ৬ ইনিংসে হাত ঘুরিয়ে চারবারই অন্তত ৫ উইকেট পেলেন তিনি। অভিজ্ঞ অশ্বিন ৪৭ রান দিয়ে পান বাকি ৫ উইকেট। সিরিজে তার উইকেটসংখ্যা মোট ৩২টি, অক্ষরের ২৭টি।

দেশের মাটিতে ২৩টি টেস্ট জিতে স্টিভ ওয়াহকে (২২ জয়) ছাড়িয়ে গেলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তার সামনে এখন গ্রায়েম স্মিথ (৩০ জয়) ও রিকি পন্টিং (২৯ জয়)। তবে এই সিরিজ জয়ে দলের দুই সিনিয়র ও দুই জুনিয়রের অবদান সবচেয়ে বেশি। তাই গর্বিত অধিনায়ক বলছেন, ‘চেন্নাই টেস্টে রোহিতের আক্রমণাত্মক ইনিংসের জন্য ম্যাচ আমাদের দখলে চলে আসে। শুধু তাই নয়, সিরিজের মোড় ঘুরিয়ে দেয় সেই ইনিংস। অশ্বিন তো পুরো সিরিজে ব্যাটে-বলে ধারাবাহিকতা দেখিয়েছে। ও আমার দলের স্পেশাল খেলোয়াড়। তবে পান্ত, সুন্দর, সিরাজকে নিয়ে আমি সবচেয়ে বেশি আশাবাদী। ওদের লড়াকু মনোভাবে মুগ্ধ আমি। ওদের পারফরম্যান্স বুঝিয়ে দিয়েছে যে আমাদের রিজার্ভ বেঞ্চ খুবই শক্তিশালী।’

বিধ্বস্ত অধিনায়ক জো রুট বলেছেন, ‘শেষ তিনটা টেস্ট আমাদের পরীক্ষা নিয়ে ছাড়ল, ভারত আমাদের বিপর্যস্ত করেছে। এই অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে ব্যক্তিগত ও দলীয়ভাবে আমাদের উন্নতি করতে হবে। ফাইনালের জন্য ভারতকে শুভকামনা।’

কোহলি বলেছেন, ‘২০২০ সালের শুরুতে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের কথা শুনলেই অবিশ্বাস্য মনে হতো। তবে এবার আমাদের সেই লক্ষ্যের দিকে এগোতে হবে।’ ১৮ জুন থেকে লর্ডসের ফাইনালসহ ইংল্যান্ডে ভারত আগামী মৌসুমে মোট ৬টি টেস্ট খেলবে। জুনে ফাইনালে খেলে এসে জুলাইয়ে আবার ৫ টেস্টের সিরিজ খেলতে যাবে তারা। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড লর্ডসের ফাইনালের আগে দুই টেস্টের সিরিজ খেলবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে (২ জুন থেকে লর্ডসে, ১০ জুন থেকে এজবাস্টনে)।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ইংল্যান্ড : ২০৫ ও ১৩৫ (ক্রলি ৫, সিবলি ৩, বেয়ারস্টো ০, রুট ৩০, স্টোকস ২, পোপ ১৫, লরেন্স ৫০, ফোকস ১৩, বেস ২, লিচ ২, অ্যান্ডারসন ১*; অশ্বিন ৫/৪৭, অক্ষর ৫/৪৮)। ভারত : ১ম ইনিংস (আগের দিন ২৯৪/৭) ৩৬৫ (সুন্দর ৯৬*, অক্ষর ৪৩; স্টোকস ৪/৮৯, অ্যান্ডারসন ৩/৪৪, লিচ ২/৮৯)। ফল : ভারত ইনিংস ও ২৫ রানে জয়ী। সিরিজ : ৪ ম্যাচের সিরিজে ভারত ৩-১ টেস্টে জয়ী। ম্যাচসেরা : ঋষভ পান্ত। সিরিজ সেরা : রবিচন্দ্রন অশ্বিন।