শ্রমিককে হত্যার চেষ্টা, ফুঁসে ওঠেছে এলাকাবাসী

98
শ্রমিককে হত্যার চেষ্টা ফুঁসে ওঠেছে এলাকাবাসী
গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে হোটেল শ্রমিককে হত্যার চেষ্টা ফুঁসে ওঠেছে এলাকাবাসী গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার ধাপেরহাটে গোলজার রহমান (৩০) নামের এক অসহায়,নিরীহ,হাবাগোবা হোটেল শ্রমিককে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষোভ-সমাবেশ করেছে এলাকাবাসী।
মঙ্গলবার ৩০ মার্চ দুপুরে ধাপেরহাট ইউনিয়নের হাসানপাড়া গ্রামের কলিম উদ্দিনের বাড়ির উঠানে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন,মটর শ্রমিক নেতা লিয়াকত আলী সাদা মিয়া।
সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামলীগ ধাপেরহাট ইউনিয়ন শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক লাভলু প্রামানিক,স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক শরিফুল ইসলাম প্রামানিক, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ন.ম আশিকুজ্জামান রিমেল, স্থানীয়দের মধ্যে মিজানুর রহমান,আশরাফুল ইসলাম, হামিদুল ইসলাম,রাসেল মিয়া প্রমুখ। অভিযুক্ত আব্দুল্যা আল মামুন একজন,সন্ত্রাসী,ইয়াবা ব্যবসায়ী,ইয়াবা খোর ও চাঁদাবাজ বলেও বক্তারা প্রতিবাদ সমাবেশে উল্লেখ করেন।
বক্তারা বলেন,গত ২৮ মার্চ রাতে ধাপেরহাট ইউনিয়নের খামারপাড়া গ্রামের হোটেল ব্যবসায়ী মান্নান মন্ডলের ছেলে আব্দুল্যা আল মামুন হাসানপাড়া গ্রামের দুলা মিয়ার ছেলে ও ধাপেরহাটের সুগন্ধা হোটেলের শ্রমিক গোলজার রহমানকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বেধরক মারপিট করে গুরুতর আহত করে।
এ খবর পেয়ে স্বজনরা ঘটনাস্থলে এসে গোলজারকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে পীরগঞ্জ ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বক্তারা আরও বলেন,আব্দুল্যা আল মামুন ইতিপূর্বে এধরণের একাধিক ঘটনা ঘটিয়েছে। সেসব ঘটনার শিকার কেউই তার প্রতিবাদ করতে পারেনি। ফের গোলজারকে হত্যার চেষ্টা চালাচ্ছিলো।
এই নির্যাতনকারি আল মামুনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান বক্তারাসহ উপস্থিত নারীপুরুষ। অন্যথায় আবারও বৃহত্তর কর্মসূচি দেয়া হবে। এ সমাবেশ শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল হাসানপাড়া থেকে ধাপেরহাট বন্দরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় এলাকার শতশত নারী-পুরুষ অংশ নেয়।
এসময় উক্ত সন্ত্রাসী মামুনের হামলা,মারপিট ও রোষানলের শিকার সাবেক ইউপি সদস্য জহুরুল ইসলাম,সাদ্দাম হোসেন, আলা উদ্দিন,মিজানুর রহমান, আশরাফুল,অপু,কিনা মিয়া, রাসেল,ব্যবসায়ী মাসুদ শেখ,হামিদুল,ইউনুস আলী, মতি মিয়া ও আব্দুল হান্নান উপস্থিত ছিলেন। তারাও মামুনের দ্বারা নিগৃহীত হয়েছিলেন বলে উপস্থিত সমাবেশে জানান।
এব্যাপারে অভিযুক্ত আল মামুনের সাথে যোগাযোগ করেও তার সাক্ষাৎ মেলেনি তবে মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩ টার দিকে আব্দুল্যা আল মামুনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। সাদুল্লাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাসুদ রানা বলেন,এ ঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে ভুক্তভোগী পরিবার ও তার শুভাকাঙ্ক্ষীরা জানান।