সাভারে বংশীনদী থেকে উদ্ধার করে পুলিশ এক নারী লাশ

22

মোঃ আহসান হাবীব, সাভার প্রতিনিধি ঢাকাঃ রোববার ৪ এপ্রিল দুপুরের পর সাভারের আশুলিয়ায় নিখোঁজের ৫ দিন পর সাহিদা আক্তার হ্যাপি নামে এক নারীর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বিয়ের জন্য চাপ দেওয়ায় তাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর বস্তাবন্দি করে নদীতে ফেলে দেয় প্রেমিক বাবু আকন্দ। বাবুকে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠায় পুলিশ। রোববার দুপুরে আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকার বংশী নদী থেকে সাহিদার বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বুধবার রাতে ৩১ মার্চ আশুলিয়ার কুরগাও এলাকার বাবু আকন্দের নিজ বাড়িতে তাকে হত্যা করে। নিহত হ্যাপি বরিশাল জেলার হিজলা থানার কোলচড় এলাতার কুদ্দুস ব্যাপারীর মেয়ে। তিনি আশুলিয়ার কুরগাও এলাকায় ভাড়া থেকে স্নোটেক্স কারখানায় কাজ করতেন। গ্রেফতার বাবু আকন্দ পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া থানার কুমিরমারা গ্রামের ইউসুফ আলীর ছেলে। পুলিশ বলেন, বুধবার রাতে ৩১ মার্চ হ্যাপি প্রেমের সম্পর্কের জেরে বাবুর সাথে তার বাড়িতে দেখা করতে যায়। পরে সেখানে বিয়ের জন্য চাপ দেয় হ্যাপি। বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে হ্যাপিকে তার ওড়না দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে মরদেহ বস্তাবন্দি করে নদীতে ফেলে দেয়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা থানায় অভিযোগ করে। পুলিশ অনুসন্ধান শুরু করেন। বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে সন্দেহের সূত্র ধরে কথিত প্রেমিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে হত্যার ৫ দিন পর হ্যাপির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। বুধবার ৩১ মার্চ রাতে বাবু আকন্দ হ্যাপিকে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার জন্য নজরুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালকের সহায়তা চায়। তবে সিএনজি চালক বিষয়টি কৌশলে র‌্যাব-৪ কে জানায়। পরে র‌্যাব বাবু আকন্দকে শুক্রবার রাতে আটক করে আশুলিয়া থানায় হস্তান্তর করে। পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে মরদেহ ফেলে দেওয়ার স্থান নিশ্চিত করে বাবু। পরে বাবুর দেওয়া দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে নয়ারহাট এলাকার বংশীয় নদী থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানা পুলিশের উপপরিদর্শক ইকবাল হোসেন বলেন, আসামির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সাহিদার বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। একই সাথে রিমান্ড চেয়ে বাবুকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।