১১ এপ্রিলের ইউপি ও পৌর নির্বাচন ‘স্থগিত’

 আগামী ১১ তারিখে প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন স্থগিত করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সোমবার (২৯ মার্চ) বিকালে এক জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে। সূত্র জানায়, মহামারী করোনা নিয়ন্ত্রণে সকালে ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করে সরকার।
এরপর জরুরি বৈঠকে বসে কমিশন। বৈঠকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা, নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, বেগম কবিতা খানম, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শাহাদাত হোসেন চৌধুরী (অব.), ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার, অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
ইসি সূত্র জানা গেছে, ১১ এপ্রিল ৩৭১টি ইউপি ও ১১টি পৌরসভায় ভোটগ্রহণের দিন ধার্য ছিলো। করোনার কারণে এগুলো স্থগিত করা হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এসব নির্বাচনের পরবর্তী তারিখ ঘোষণা করা হবে। এছাড়া ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিত্য লক্ষ্মীপুর-২ আসনে উপ-নির্বাচনের বিষয়ে আগামী ১ এপ্রিলের বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ওই সূত্র।
সূত্র আরও জানায়, করোনা মহামারীর কারণে আপাতত সব নির্বাচনি প্রশিক্ষণও বন্ধ রাখা হয়েছে। এ বিষয়ে ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার যুগ্ম-সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান বলেন, ১১ এপ্রিলের ভোট বন্ধ হবে কি না তা ১ এপ্রিল কমিশন সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে কমিশন। ইসি সূত্র জানায়, আগামী ১ এপ্রিল বিকাল ৩টায় কমিশনের ৭৮/২০২১তম সভার নোটিশ জারি হয় ২৫ মার্চ।
ওই সভার আলোচ্য সূচির মধ্যে রয়েছে- সিলেট-৩ শূন্য আসনের নির্বাচন, নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল কর্তৃক নিবন্ধনের শর্তাদি প্রতিপালন সংক্রান্ত, দ্বৈত ভোটার হওয়ার কারণে মামলা দায়ের, দ্বৈত ভোটার প্রবণতা রোধকল্পে সুপারিশ মালা প্রণয়ন সংক্রান্ত এবং বিবিধ।