ঢাকাশুক্রবার ২৭শে মে ২০২২
৩০ মৌচাকে ঘেরা দারোগা বাড়ি, মিলছে লাখ টাকার মধু | Doinik Astha
ঢাকাশুক্রবার ২৭শে মে ২০২২

আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩০ মৌচাকে ঘেরা দারোগা বাড়ি, মিলছে লাখ টাকার মধু

DoinikAstha
মার্চ ১১, ২০২২ ১১:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আস্থা ডেস্কঃএকটি-দুটি নয়, ৩০টিরও বেশি মৌমাছির চাকে ঘেরা দ্বিতল বাড়ি। প্রায় দুই দশক ধরে মৌমাছিরা বাড়িটিতে বাসা বেঁধে আসছে। বাড়িটির জানালা, বারান্দা এবং ছাদের কার্নিশ সবখানেই বাসা বেঁধেছে মৌমাছি। বাড়িটি ‘দারোগা বাড়ি’ নামে পরিচিত। তবে বাড়িটিতে দীর্ঘকাল মৌমাছিরা একে একে সর্বোচ্চ ৩০টি মৌচাক তেরি করেছে। যে কারণে বাড়িটি এখন রাতারাতি নাম পাল্টে ‘মৌচাক বাড়ি’ হিসেবে এলাকায় পরিচিতি পেয়েছে।

এদিকে, একটু পরপর মৌচাক থেকে মৌমাছি বের হয়ে উড়ে যাচ্ছে পাশের আম বাগানে। মধু সংগ্রহ করে এনে জমা করছে চাকে। এমন দৃশ্য দেখতে প্রতিদিনই বাড়িতে ভিড় করছেন উৎসুক মানুষেরা।

বাড়িটির অবস্থান নড়াইল সদর উপজেলার কলোড়া ইউনিয়নের আগদিয়া গ্রামে। নড়াইল শহর থেকে প্রায় ৫কিলোমিটার দক্ষিণে গোবরা বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রধান সড়ক দিয়ে নওয়াপাড়া বাজার যেতে দুই কিলোমিটার এগোতে হাতের বাম পাশে চোখে পড়বে একটি হলুদ রংয়ের দ্বিতল বাড়ি। বাড়িটির নাম ‘দারোগা বাড়ি’। বাড়ির দোতলা ভবনের কার্নিশের ওপর বাসা বেঁধেছে মৌমাছিরা। বাড়িটির মূল মালিক ছিলেন বাশারত দারোগা নামে এক পুলিশ কর্মকর্তা। তার মৃত্যুর পর উত্তারাধিকার একমাত্র কন্যার স্বামী জাকির হোসেন চৌধুরী হলেও যুগ যুগ ধরে বাড়িটি ‘দারোগা বাড়ি’ নামে পরিচিত। তবে বাড়িটিতে গত ১৭ বছরে মৌমাছিরা একে একে সর্বোচ্চ ৩০টি মৌচাক তেরি করেছে। যে কারণে বাড়িটি এখন রাতারাতি নাম পাল্টে ‘মৌচাক বাড়ি’ হিসেবে বেশ পরিচিতি পেয়েছে।

গত বছর এই বাড়িতে মৌচাকের সংখ্যা ছিল ২৩টি। সেগুলোর মধু বিক্রি করে মিলেছে প্রায় লাখ টাকা।
সরেজমিনে দেখা যায়, এলাকায় প্রচুর কৃষিজমি। জমিতে রোপণ করা হয়েছে শর্ষে। আবার নড়াইল-নওয়াপাড়া প্রধান সড়কের পাশ দিয়ে প্রচুর আম বাগান। দক্ষিণ পাশে এই সড়কের লাগোয়া দ্বিতল ভবন। দ্বিতল ভবনের পূর্ব পাশের কার্নিশ জুড়ে সারিবদ্ধভাবে রয়েছে মৌমাছির চাক। এছাড়া বাড়িটির ছাদ, জানালার কার্নিশে মৌমাছির বাসা। প্রায় ৩০টির মতো মৌচাক থেকে মৌমাছি মধু সংগ্রহ করতে ছুটে চলছে। জানালার ফাঁকা স্থান দিয়ে ঘরে আসা-যাওয়া করছে মৌমাছিরা। নিচে ছোট ছেলেমেয়েরা খেলাধুলা করছে, বাড়ির লোকজনও স্বাভাবিকভাবে ঘোরাফেরা করছে। তবে মৌমাছি কাউকেই কামড় দিচ্ছে না। এমনকি মৌচাকের খুব নিকটে গেলেও কামড় দেয় না।

গৃহকর্তা জাকির হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘২০০৪ সালে বাড়িটি নির্মাণ করেন। বাড়িতে পরিবারের সদস্যরা বসবাস করলেও নির্মাণের এক বছর পর থেকে ২০০৫ সালে মৌমাছি এসে বাসা বাঁধা শুরু করে। প্রতিবছর মৌচাকের সংখ্যা বেড়ে চলছে। গত বছর মৌচাকের সংখ্যা ছিল ২৩টি। এবার ১০টি বেড়ে দাঁড়িয়ে ৩৩টি হলেও শর্ষে ক্ষেত কম হওয়ার কয়েকটি উড়ে গেছে। তবে আমের মুকুল আসায় এখনো আরও মৌচাক তৈরির সময় আছে। হয়তোবা মৌচাকের সংখ্যা আরও বাড়বে।’

মৌমাছির সার্বক্ষণিক দেখভাল করা মৌচাক বাড়ির সন্তান রানা চৌধুরী বলেন, ‘আমি সব সময় মৌচাকের আশপাশে ঘোরাফেরা করি। এত মৌমাছি থাকলেও আজ পর্যন্ত কখনো কাউকেই কামড় দেয় না। শুধু আঘাত বা উৎপাতের শিকার হলে মৌমাছি আক্রমণ শুরু করে। এ কারণে কেউ যাতে ঢিল বা লাঠি দিয়ে খোঁচা না দেয় তা খেয়াল রাখতে হয়।’

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাধারণত অগ্রহায়ণ মাসে মৌমাছিরা বাসা বাঁধতে শুরু করে। এ সময় বাড়ির চারপাশের সরিষা ক্ষেতে ফুল আসে। সরিষার মৌসুম শেষ হলে আম, লিচু ও মেহগনি, গাছে ফুল আসা শুরু করে। সেসব ফুল থেকেও মৌমাছিরা মধু সংগ্রহ করে। ছয় মাসের মতো থেকে চৈত্র মাসের দিকে চলে যায় মৌমাছি দল। বছরের বাকি সময় চার-পাঁচটি চাক থাকে। মৌমাছিদের অবস্থানকালে পাঁচ থেকে সাতবার মৌয়ালেরা এসে চাক কাটেন। এই বাড়ির মৌচাক দেখতে দূরদূরান্ত থেকে মানুষ আসে। প্রধান সড়ক সংলগ্ন হওয়ায় প্রতিনিয়ত চলাচলকারী যানবাহনের যাত্রীরা আসা-যাওয়ার সময় দৃষ্টিনন্দন মৌমাছির চাক উপভোগ করে থাকেন।

মৌচাক দেখতে আসা কলেজ শিক্ষার্থী মিশানুর ও ইমন আল মামুন বলেন, ‘এলাকাটি নির্জন। বিস্তৃর্ণ ফসলের মাঠের পাশেই বাড়িটির অবস্থান। শীতের সময়ে খেতগুলোতে শর্ষে আবাদ করা হয়। পাশাপাশি এলাটিতে প্রচুর আম বাগান রয়েছে। কিছুদিন আগে মৌচাকের কথা শুনে আমরা দূর থেকে দেখতে এসেছি। ফেইসবুকে ছবি তুলে পোস্টও করেছেন।’

প্রতিবেশী মুদি ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে মৌমাছির চাক দেখছি। এই বাড়িকে এখন সবাই ‘দারোগা বাড়ি’ নয় ‘মৌচাক বাড়ি’ হিসেবেই চেনে। রাস্তা দিয়ে যাতায়াতকালে অনেকে কৌতূহলবশত দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখেন।

স্থানীয় আগদিয়া-শিমুলিয়া ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক বিপ্লব হোসেন শেখ বলেন, ‘মৌচাকে সাধারণত কয়েক হাজার মৌমাছি থাকে। মৌমাছি বাসা বাঁধার ক্ষেত্রে সাধারণত নিরাপত্তা ও খাবারের ওপর খুব গুরুত্ব দেয়। বাড়িটি লাগোয়া প্রধান সড়ক দিয়েই আমি নিয়মিত যাতায়াত করতে যেয়ে লক্ষ্য করেছি ওই এলাকায় প্রচুর শর্ষেখেত ও আম বাগান। যেখানে ফুলের সমারোহ বেশি থাকে, যেখানে থাকলে ফুলের নেকটার সংগ্রহ করা সহজ, এমন জায়গা পছন্দ করে তারা। যে কারণে প্রতিবছর এত মৌমাছি নিজেদের প্রয়োজনে সেখানে বাসা বাঁধে।’

আরো পড়ুন :  পার্বত্যাঞ্চলের সকল প্রকার রক্তপাত বন্ধ করা হবে-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী (ভিডিওসহ)

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।
সেহরির শেষ সময় - ভোর ৩:৪৫
ইফতার শুরু - সন্ধ্যা ৬:৪২
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫০
  • ১১:৫৯
  • ৪:৩৪
  • ৬:৪২
  • ৮:০৬
  • ৫:১২