৫ বছর পরে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে প্রাণচাঞ্চল্য

কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি: কক্সবাজার টেকনাফে দীর্ঘ ৫ বছর পরে উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য সিমান্ত শহর টেকনাফ উপজেলায়। সঠিক সময়ে সম্মেলন না হওয়া, বিতর্কিত কমিটি ও মেয়াদ উত্তীর্ণ, অ-ছাত্র কমিটিতে থাকায় ছাত্রলীগের উর্বর ভূমি হয়েও কর্মীরা হতাশ হয়েছে বারংবার।

আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারী টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের দিন ধার্য করা হয়েছে। প্রিয় সহযোদ্ধা বৃন্দ ৪ টি কারণে আগামীতে টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন খুব গুরুত্বপূর্ণ। ১.মাদক ২.রোহিঙ্গা ইস্যু ৩.মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন প্রকল্প ৪.ছাত্রদের অধিকার ফিরিয়ে দেওয়া এই চারটি পয়েন্টকে সামনে রেখে তৃণমূল ছাত্রলীগ প্রাণ মারুফ আদনান ভাইয়ের পক্ষে আমি নিজেকে একজন প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করছি।

কয়েকদিন পরে সম্মেলন হবে নতুন নেতৃত্ব উঠে আসবে। টেকনাফ উপজেলায় এমন নেতৃত্ব উঠে আসুক যারা মাদক, রোহিঙ্গা সমস্যা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন প্রকল্প ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের কথা বলে একমাত্র তাদেরকে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি / সম্পাদক করা হোক। আমি ছাত্রলীগের একজন নগন্য কর্মী হিসেবে কেন্দ্রীয় ও দলীয় সিদ্ধান্তে সবসময় একাট্টা। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের হাজারো ত্যাগী কর্মী বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবীত হয়ে শেখ হাসিনার সংগ্রামে সদা প্রস্তুত, এই সংগঠনে সবার অধিকার সমান। কোন ধরনের ভয়ভীতি ও পেশীশক্তি আমাকে আমার আদর্শ থেকে পিছিয়ে রাখতে পারবে না।

ইনশাআল্লাহ দীর্ঘদিনের সিন্ডিক ষড়যন্ত্র ভেদ করে সাধারণ শিক্ষার্থীদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিবেন জেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ সেই প্রত্যাশা করি। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। আব্দুল্লাহ আল মামুন, সাবেক সদস্য, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কক্সবাজার জেলা শাখা। সাধারণ সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ, কক্সবাজার জেলা শাখা।