সাভারে শ্রমিক ছাটাইয়ের পরে চাকরি ফিরে পেতে বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ

মোঃ আহসান হাবীব, সাভার প্রতিনিধি ঢাকাঃ শনিবার ১৭ এপ্রিল দুপুরে পর ঢাকার সাভারে চাকরিতে পুনর্বহাল ও বকেয়া বেতনের দাবিতে একটি কারখানার সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ ও মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকেরা।

উপজেলার বিরুলিয়া ইউনিয়নের খাগানের অ্যাপারেলস ভিলেজ কারখানার সামনে এই কর্মসূচি করে তারা। শ্রমিকরা বলে, ওই কারখানায় প্রায় ৫ হাজার শ্রমিক দীর্ঘ দিন ধরে কাজ করে আসছি। এর মধ্যে হঠাৎ করে গত ৯ মার্চ সন্ধ্যা ৬টার দিকে কারখানা কর্তৃপক্ষ প্রায় ৫০ জন শ্রমিককে ছাটাই করে। তারা আরও বলে, কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই বকেয়া বেতন ও পাওনাদি পরিশোধ না করে আমাদের ছাঁটাই করা হয়। এ সময় তাদের পরিচয়পত্র জোরপূর্বক রেখে দেয় কারখানা কর্তৃপক্ষ। ছাটাই কৃত শ্রমিক ময়না বলেন, রমজান ও ঈদের আগে আমাদের কোনো ধরনের নোটিশ ছাড়াই চাকরি থেকে বের করে দিয়েছে কারখানা কর্তৃপক্ষ। এ সময় চাকরি না থাকলে আমরা রমজান ও ঈদে অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে যাব। আমরা চাকরি ফেরত চাই। ছাটাই কৃত অপর শ্রমিক শিউলি বলেন, আমরা অনিশ্চয়তা ও হতাশায় রয়েছি। ঈদের আগে এমন মানবতাহীন কাজ আমাদের কষ্ট দিয়েছে। আমরা এই মুহূর্তে কোথাও চাকরি পাব না।তিনি আরও বলেন, লকডাউন ও রমজানে কোথাও একটি লোক নেবে না। তাহলে আমরা এ দুই মাস কী খেয়ে বেঁচে থাকব? বাচ্চাদের নিয়ে ঈদ কীভাবে করব? আমি আমাদের আইনগত পাওনাদি চাই, না হলে চাকরি ফেরত চাই।এ ব্যাপারে অ্যাপারেলস ভিলেজ কারখানার অ্যাডমিন অফিসার মোহাম্মদ নাসির উদ্দীনের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

স্বাধীন বাংলা গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আল কামরান বলেন, ওই কারখানায় গত ৯ মার্চ ৫০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করা হয়। তবে আমার কাছে এসে সহযোগিতা চেয়েছেন ২৪ জন। তাদের নিয়ে আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর অভিযোগ করেছি।

আরো পড়ুন :  স্বাস্থ্য ঝুকিতে এলাকাবাসী ভারতীয় ট্রাক চালকরা অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছেন

তিনি আরও বলেন, এতেও কোনো ধরনের অগ্রগতি না দেখে কর্মসূচি দিলে কারখানার নিরাপত্তাকর্মীরা নারী শ্রমিকদের ধাক্কাধাক্কি করে। পরে মালিকপক্ষ বলে, আগামী ২১ এপ্রিল আইনগত পাওনাদি পরিশোধের তারিখ জানানো হবে। পরে শ্রমিকরা কারখানার ফটক থেকে সরে আসেন।