সাভারে ছিনতাই কারী ও হত্যাকান্ডের আসামীকে আটক করেছে র‌্যাব-৪

মোঃ আহসান হাবীব, সাভার প্রতিনিধিঃ হত্যা মামলায় জেল খেটে জামিনে বের হয়ে দেলোয়ার হোসেন দিলু সাভারে গড়ে তোলেন ভয়ঙ্কর ছিনতাই চক্র। তাদের দলের ছুরিকাঘাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও স্কুল কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান খুন করে । এরপর থেকে পলাতক ছিলেন দেলোয়ার। কিন্তু অবশেষে রক্ষা হলো না তার। শুক্রবার র‌্যাবের হাতে আটক হন তিনি। পরে তাকে সাভার থানায় হস্তান্তর করা হয়। শনিবার ২০ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এসব তথ্য নিশ্চিত করে র‌্যাব-৪ ও সহকারী পুলিশ সুপার। এর আগে সাভারের রাজাশনের পালোয়ানপাড়া এলাকা থেকে শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৪। গ্রেপ্তার দিলু সাভারের রাজাশন এলাকার নুর মোহাম্মদের ছেলে।

তিনি ২০১২ সালের মর্মান্তিক হত্যাকান্ড ঘটান, সেই হত্যাকান্ডের সাজা হয়েছে, ডাকাতিসহ একাধিক মামলার জেল খেটেছেন। জামিনে এসে তিনি সাভারে ছিনতাই চক্র গড়ে তোলেন পুলিশ জানান। এর আগে আজাদ শরীফ (৩০) ও রনি (৪৮) গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৪। র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও স্কুল কর্মকর্তা মুস্তাফিজুর রহমান হত্যার সঙ্গে জড়িত দিলু ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিল। তাকে গ্রেপ্তারে শুক্রবার সাভারে অভিযান পরিচালনা করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এই অভিযান পরিচালনা করে ছিনতাই চক্র গড়ে তোলা মুলনায়ক দিলুকে আটক করা হয়। র‌্যাব-৪ ও সহকারী পুলিশ সুপার বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাভারের রাজাশনের পালোয়ানপাড়া এলাকা থেকে তাকে আটক করে সাভার মডেল থানায় রাখা হয় ।

এর আগে আজাদ শরীফ ও রনিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের তথ্য অনুযায়ী দিলুকে গোপন সুত্রে আটক করা হয়। প্রসঙ্গত, গত ২৪ অক্টোবর ভোরে রাজশাহী থেকে বাসে সাভারের সিআরপি রোড এলাকায় নামে স্কুল কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান। এ সময় ছিনতাইকারীরা তার কাছে থাকা অর্থ ও মোবাইল ফোন নিতে গেলে মোস্তাফিজুর বাঁধা দেয়। পরে ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে মোবাইল ফোন, নগদ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে পরদিন সাভার মডেল থানায় একটি মামলা করেন। এরপরই র‌্যাব বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে দিলু সহ তার দুইজন কর্মী কে আটক করে র‌্যাব।